কবুতরের জ্ঞান ক্ষমতা মানুষের সমান, কীভাবে জেনে নিন

|

আমাদের দেশে কবুতরের প্রচলন দীর্ঘকাল থেকেই চলছে। তাঁর মনের সম্ভাবনা দেখে লোকেরা প্রাচীনকালে তাদের বার্তা এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় পাঠাত। একটি গবেষণা এই সত্যটি প্রমাণ করেছে যে, কবুতর মানুষের মতো বুদ্ধিমান। শুধু এটিই নয়, মানুষের মতো এই পাখিগুলিও বিজ্ঞানের প্রয়োজনীয় নীতিগুলি খুব ভালভাবে বুঝতে পারে।

আদিযুগের বিজ্ঞানের মতে, কবুতর মানুষের চেয়ে দ্রুত ‘স্থান’ এবং ‘সময়’ বুঝতে পারে। তবে এই গবেষণায় আরও জানা গেছে যে, এই বিষয়গুলি বুঝতে, তাদের মস্তিষ্কের একটি আলাদা অংশ কাজ করে যা মানুষের মনের মতো নয়।

পরিচালিত গবেষণায় দেখা গেছে যে পাখি, সরীসৃপ, মাছ এমন প্রাণী যা অন্যের চেয়ে চিন্তাভাবনার ক্ষমতা বেশি। গবেষণার ফলাফলগুলি দেখায় যে, পাখির জ্ঞানীয় ক্ষমতা এখন এত বেশি বেড়েছে যে এটি মানুষের মনের কাছাকাছি চলে এসেছে।

মানুষের মস্তিষ্কের বাইরের অংশ চিন্তাভাবনা, কথা বলা এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের মতো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকে পালন করে। তবে কবুতরগুলি মস্তিষ্ককে সক্রিয় করে তোলে।

কবুতরের মানসিক ক্ষমতা মূল্যায়নের জন্য কবুতরের একটি সাধারণ পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল।

এতে তাকে ২ থেকে ৪ সেকেন্ডের জন্য কম্পিউটারের স্ক্রিনে ৬ বা ২৪ সেন্টিমিটার দীর্ঘ লাইন দেখানো হয়েছিল। এই পরীক্ষার পরে জানা গেল যে, এই পাখির মস্তিষ্কে একটি ভিন্ন সিস্টেম কাজ করে, যা তাদের সাধারণ তবে গুরুত্বপূর্ণ বিজ্ঞানের নীতিগুলি বুঝতে সহায়তা করে।








Leave a reply