মেসি-রোনালদোকেও ছাড়িয়ে গেলেন আনসু ফাতি!

|

১৮-তে পা দেননি এখনো। তার আগেই হুলস্থুল ফেলে দিয়েছেন ইউরোপিয়ান ফুটবলে। এই বয়সেই একের পর এক রেকর্ড ভেঙে নতুন করে গড়ছেন। এমনকি একে একে পেছনে ফেলছেন বিশ্বসেরা লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকেও! এই বিস্ময়বালকের নাম আনসু ফাতি। বার্সেলোনার এই ক্ষুদে ফুটবলার এখন ইউরোপিয়ান ফুটবলের হটকেক।

লা লিগার সবচেয়ে কম বয়সী ফুটবলার হিসেবে গোল করার পর, স্পেন জাতীয় দলেও সর্বকনিষ্ঠ ফুটবলার হিসেবে গোল করার রেকর্ড গড়েছেন ফাতি। জাতীয় দলের হয়ে গোল করার সময় রোনালদোর বয়স ছিলো ১৯। অন্যদিকে মেসি ছিলেন ১৮ বছর বয়সী। সেখানে মাত্র ১৭ বছর বয়সেই আন্তর্জাতিক অঙ্গনে গোল করে ফেলেছেন ফাতি।

বয়স ১৮ হতে আরো মাসখানেক বাকি। তার আগেই লা লিগায় ১১টি গোল করে ফেলেছেন ফাতি। এমন কৃতিত্ব নেই তার আইডল লিওনেল মেসিরও! সবচেয়ে বিস্ময়কর তথ্য হচ্ছে, এই বয়সে মেসির তুলনায় ১০ গোল বেশি করেছেন ফাতি! ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোরও নেই এমন কীর্তি!

কেবল মেসি-রোনালদোই নন, বয়স ১৮ পূর্ণ হওয়ার আগে ফাতির সমান গোল করতে পারেননি কম বয়সেই নাম কামানো রিয়াল মাদ্রিদ তারকা রাউল গঞ্জালেস, ওয়েইন রুনি কিংবা কিংবা হালের তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পেরও।

লুই এনরিকের স্পেন দলে ডাক পেয়েই গোল করেন ফাতি। নতুন মৌসুমেও স্পেন দলের স্কোয়াডে থাকছেন তিনি।

বার্সায় পা রেখে কোচ রোনাল্ড কোম্যান চেয়েছিলেন তাকে অন্য কোনো ক্লাবে পাঠিয়ে দিতে। এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠার পর তাকে কাতালানেই রাখা হয় এবং খেলানো হয় একাদশে। মাত্র ৩ ম্যাচ শেষেই নিজেকে সেরা একাদশেই দেখতে পান আনসু ফাতি!

তবে এতসব অর্জনের পর, এই বয়সেই আকাশে উড়তে চাইলে ভুলই করবেন ফাতি। কারণ বার্সারই আরেক তরুণ বোজানও এমনই ধামাকা দেখিয়েছিলেন শুরুতে। তবে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় আবার হারিয়েও গেছেন। তাই তো, পা রাখতে হবে মাটিতে। তার সবসময়ের আইডল লিওনেল মেসির সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে খেলছেন বার্সা একাদশে, তার কাছ থেকেই শিখে নিতে পারেন বিশ্বসেরা হবার মন্ত্র। লা মাসিয়া থেকে উঠে আসা অনন্য প্রতিভাবানদের একজন ছিলেন মেসি, একজন হতে পারেন ফাতিও। সেই লক্ষ্যেই ছুটতে হবে তাকে। আপাতত এই বয়সে মেসি-রোনালদো, রুনি কিংবা রাউলকে ছাড়িয়ে যাওয়াটা উপভোগ করতে পারেন তিনি।








Leave a reply