ভুল আম্পায়ারিংয়ের বিচার চেয়ে পাঞ্জাবের আবেদন

|

আইপিএলের দ্বিতীয় ম্যাচেই ভুল আম্পায়ারিং নিয়ে তুলকালাম হয়ে গেছে। গতকাল রবিবার দিল্লি ক্যাপিটালসের বিপক্ষে ম্যাচটি ‘টাই’ হওয়ার পর সুপার ওভারে হারে পাঞ্জাব। আম্পায়ার নীতিন মেনন ওয়ান শর্টের সিদ্ধান্ত দেওয়ায় পাঞ্জাবের মোট স্কোর থেকে কেটে নেওয়া হয় ১টি রান। কিন্তু টিভি রিপ্লেতে দেখা গেছে, রানটি বৈধ ছিল। এরপর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন পাঞ্জাব মালিক প্রীতি জিনতাসহ অনেকে। এবার ম্যাচ রেফারি জাগাভাল শ্রীনাথের কাছে আবেদন করেছে দলটি।

পিটিআইকে পাঞ্জাবের প্রধান নির্বাহী সতিশ মেনন বলেছেন, ‘আমরা ম্যাচ রেফারির কাছে আবেদন করেছি। মানুষের ভুল হতে পারে এবং এটা আমরা বুঝি। তবে আইপিএলের মতো বিশ্ব মানের টুর্নামেন্টে এই ধরনের ভুলের কোনো জায়গা নেই। এর জন্য আমরা প্লে অফের টিকেট হারাতে পারি। হার তো হারই। এটা অন্যায়। আশা করি, নিয়মগুলো পর্যালোচনা করা হবে।’

পাঞ্জাবের ইনিংসের ১৯তম ওভারে এই কাণ্ড ঘটে। মায়াঙ্ক আগরওয়াল লং অনে বল ঠেলে ২ রানের জন্য ছোটেন। ১ রান পূর্ণ করার সময় সতীর্থ ক্রিস জর্ডানের ব্যাট ক্রিজের ভিতরে ছিল না- এমন ধারণা থেকে লেগ আম্পায়ার মেনন পাঞ্জাবকে ২ রানের বদলে ১ রান দেন। অথচ টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, জর্ডানের বাড়ানো ব্যাট ক্রিজ ছুঁয়েছিল। ওই এক রানই কাল হয় পাঞ্জাবের জন্য। এক্ষেত্রে থার্ড আম্পায়ারের দ্বারস্থ হওয়ারও কোনো নিয়ম ছিল না।

প্রীতি জিনতা (হিন্দি: प्रीति ज़िंटा; [ˈpriːt̪i ˈzɪɳʈaː]; জন্ম ৩১ জানুয়ারি ১৯৭৫) হলেন একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী, প্রযোজক ও উদ্যোক্তা। হিন্দী চলচ্চিত্রের একজন জনপ্রিয় নায়িকা হিসেবে সুপরিচিত। পাশাপাশি তিনি তেলেগু, পাঞ্জাবি ও ইংরেজি ভাষার চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন। তিনি কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন পার্শ্ব চরিত্র ও বিচিত্র পর্দা ব্যক্তিত্ব হিসেবে চলচ্চিত্রে আবির্ভূত হয়েছেন। চলচ্চিত্রে তার কাজের জন্য তিনি একাধিক পুরস্কার অর্জন করেছেন, যার মধ্যে রয়েছে দুটি করে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার ও স্ক্রিন পুরস্কার, এবং তিনটি করে আইফা পুরস্কার, জি সিনে পুরস্কার ও স্টারডাস্ট পুরস্কার।

হিমাচল প্রদেশের শিমলা শহরে জন্ম নেওয়া প্রীতি ইংরেজি ও অপরাধ মনোবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর ১৯৯৮ সালে দিল সে.. চলচ্চিত্র দিয়ে বড় পর্দায় আবির্ভূত হন এবং একই বছর সোলজার চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এই চলচ্চিত্রগুলোতে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ নবাগত অভিনেত্রী বিভাগে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি কিশোরী একক মাতা চরিত্রে ক্যায়া কেহনা (২০০০) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

জিনতা ২০০৩ সালে নাট্যধর্মী কাল হো না হো ছবিতে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার অর্জন করেন। তিনি পরবর্তীতে টানা দুই বছর ভারতের সর্বাধিক ব্যবসাসফল দুটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন, প্রথমটি ২০০৩ সালে বিজ্ঞান কল্পকাহিনীধর্মী কোই… মিল গয়া এবং দ্বিতীয়টি ২০০৪ সালে প্রণয়ধর্মী বীর-জারা। তিনি স্বাধীন আধুনিক ভারতীয় নারী চরিত্রে সালাম নমস্তে (২০০৫) ও ভারতের বাইরে সর্বাধিক আয়কারী কভি আলবিদা না কেহনা (২০০৬) ছবিতে কাজ করেন। তার প্রথম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র ছিল কানাডীয় চলচ্চিত্র হ্যাভেন অন আর্থ, যার জন্য তিনি ২০০৮ সালে শিকাগো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব থেকে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর জন্য সিলভার হুগো পুরস্কার লাভ করেন।








Leave a reply