বৃষ্টি কারণে রিজার্ভ ডে-তে সেমিফাইনাল

|

রিজার্ভ ডে-তে গড়াল ভারত-নিউজিল্যান্ড প্রথম সেমিফাইনাল। ২৩ বল বাকি থাকতে ম্যাচ বৃষ্টিতে আক্রান্ত হয়। তার আগে ৪৬.১ ওভারে ৫ উইকেটে ২১১ রান করে ফেলে নিউজিল্যান্ড। আজ বাংলাদেশ সময় বেলা সাড়ে ৩টায় বাকি ২৩ বল খেলবে কিউইরা।

তার আগে ইনিংসের শুরু থেকেই প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের ওপর ছড়ি ঘুরিয়েছেন ভারতীয় বোলাররা। শুরুর দিকে আউট হয়ে যেন হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছেন মার্টিন গাপটিল। ১৪ বল খেলে এক রান করার মতো সংগ্রামের চেয়ে আউট হওয়াই তো স্বস্তির! ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে টস জিতে এমন অস্বস্তিই ডেকে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন।

জসপ্রিত বুমরাহ ও ভুবনেশ্বর কুমারের চাপে প্রথম উইকেট হারানোর সময় ৩.৩ ওভারে স্কোরবোর্ডে ওঠে মাত্র ১ রান! গাপটিলকে কোহলির ক্যাচে পরিণত করে উইকেটছাড়া করেন বুমরাহ। দ্বিতীয় উইকেটে অধিনায়ক উইলিয়ামসন লড়াই জারি রাখেন হেনরি নিকোলসকে নিয়ে। ৬৮ রানের জুটি গড়লেও তাতে ছিল কচ্ছপগতি। রবীন্দ্র জাদেজার বলে নিকোলস বোল্ড হওয়ার সময় কিউইদের স্কোরবোর্ডে ১৮.২ ওভারে উঠেছে ৬৯ রান।

এরপর অভিজ্ঞ রস টেলর যোগ দেন অধিনায়কের সঙ্গে। দুজন মিলে দলীয় সংগ্রহে ৬৫ রান যোগ করলেও তাদের খেলায়ও ছিল টেস্ট ম্যাচের আবহ! জাদেজা, যুজবেন্দ্র চাহাল, হার্দিক পান্ডিয়া ও বুমরাহদের বিপক্ষে কিউইদের ব্যাটিংয়ের দুই স্তম্ভ আদাজল খেয়ে লড়াই করেছেন।

চাহালকে ড্রাইভ করে সিঙ্গেল নিয়ে অর্ধশত রান পূরণ করেছিলেন কিউই অধিনায়ক, এজন্য খেলতে হয় ৭৯ বল। ৯৫ বলে ৬ বাউন্ডারিতে ৬৭ রান করে চাহালের বলে জাদেজার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। সর্বশেষ ১১ ম্যাচে এটি ছিল উইলিয়ামসনের ষষ্ঠ হাফ সেঞ্চুরি। বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হাফ সেঞ্চুরিকে আবার সেঞ্চুরিতে পরিণত করেন উইলিয়ামসন।

৯ ম্যাচে ৫৪৮ রান নিয়ে বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছেন তিনি। বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান (৬০৬), অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার (৬৩৮) ও গতকালের ম্যাচের আগ পর্যন্ত ভারতের রোহিত শর্মা (৬৪৭) উইলিয়ামসনের উপরে ছিলেন।

অধিনায়কের বিদায়ের পর উইকেটে এসে হাঁসফাঁস করতে থাকা জেমস নিশাম (১২) পান্ডিয়ার বলে কার্তিকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান। ঝড়ো শুরুর পর উইকেটে থিতু হতে পারেননি কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমও। ১০ বলে দুই বাউন্ডারিতে ১৬ রান করে ভুবনেশ্বর কুমারের বলে উইকেটের পেছনে মহেন্দ্র সিং ধোনির হাতে ক্যাচ দেন তিনি।

এক প্রান্ত আগলে রেখে খেললেও অন্য প্রান্তে আসা-যাওয়ার মিছিলে দ্রুত রান তোলার সিদ্ধান্ত নেন রস টেলর। চাহালকে ছক্কা মেরে ফিফটি পূর্ণ করেন ৩৫ বছর বয়সী এ ব্যাটসম্যান। ৭২ বলে অর্ধশত রান পূর্ণ করা টেলর বৃষ্টি বাগড়া দেয়ার আগে ৮৫ বলে ৬৭ রানে অপরাজিত ছিলেন। উইকেটে তার সঙ্গী ছিলেন টম লাথাম (৩)।

উইকেট নেয়ার দিক থেকে ভারতীয় পাঁচ বোলারের মাঝে ছিল সমতা, ম্যাচ বৃষ্টিতে আক্রান্ত হওয়ার আগে সবাই একটি করে উইকেট নিয়েছেন। রান দেয়ার দিক থেকে বরাবরের মতো সবচেয়ে কৃপণ ছিলেন বুমরাহ। ৮ ওভারে একটি মেডেনসহ ২৫ রান দিয়েছেন এ পেসার। ৩০ রান দেন নতুন বলে তার পার্টনার ভুবনেশ্বর কুমার। ৫৫ রান দিয়েছেন পান্ডিয়া। জাদেজা ১০ ওভারের কোটা পূরণ করেছেন ৩৪ রান দিয়ে। ভারতের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বোলার চাহাল ১০ ওভারে দিয়েছেন ৬৩ রান।








Leave a reply