বার্সার বেতন কাটার আলোচনা শুরু

|

করোনার কারণে গত মার্চ থেকে ক’মাস ফুটবল বন্ধ ছিল। এ সময় বড় ক্লাবসহ বিশ্বের অধিকাংশ ক্লাবই ফুটবলারদের বেতন কেটেছে। এরপর ফুটবল মাঠে গড়াতে শুরু করলে আবার নিয়মিত বেতনে ফেরেন ফুটবলার। সেভাবেই শেষ হয়েছে মৌসুম।

তবে নতুন মৌসুম সামনে রেখে আবার বেতন কাটার কথা চিন্তা করছে বার্সেলোনা। প্রথম দলের ফুটবলার, টিম ম্যানেজমেন্ট এবং বার্সার কর্মকর্তাদের বেতন কাটবে তারা। বার্সা প্রেসিডেন্টের পক্ষ থেকে এরই মধ্যে মূল দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে একজনকে প্রতিনিধি করতে বলা হয়েছে। যিনি ফুটবলারদের বেতন নিয়ে আলাপ করবেন।

বার্সার বিজনেস কমিটি, বোর্ড এবং অন্যদের সঙ্গে বসে বেতন কাটার বিষয়ে এই আলাপ হবে। কিন্তু বার্সার মূল ফুটবলাররা আন্তর্জাতিক বিরতিতে আছেন। দেশের হয়ে খেলার জন্য তারা ছুটিতে আছেন। বার্সার দলে তাই বেতন নিয়ে আলাপ করার মতো সিনিয়র তেমন কোন প্রতিনিধি নেই।

গত মার্চে ফুটবলাররা বেতন কম নিলেও বার্সার অন্যান্য কর্মকর্তারা বেতন ছাড় দেয়নি। যেজন্য বার্সা আর্থিক ক্ষতির মধ্যে পড়েছে। এরই মধ্যে বার্সা তাদের আর্থিক অবস্থার চিত্র প্রকাশ করেছে। সেখানে দেখানো হয়েছে তারা ৯৭ মিলিয়ন ইউরো ক্ষতির মুখে পড়েছে। ঋন নিয়েছে ৪৮৮ মিলিয়ন ইউরো। ক্লাব গেল মৌসুমে ব্যয় করেছে ৮৫৫ মিলিয়ন ইউরো। যা তাদের বাজেট থেকে ১৯২ মিলিয়ন ইউরো কম।

তারপরও তাদের আর্থিক কাঠামোর যে অবস্থা, ফুটবলার এবং কর্মকর্তাদের বেতন কমানো ভিন্ন উপায় নেই। এভাবে ক্লাবের বেতন কমানোর সিদ্ধান্তে ফুটবলার এবং ক্লাব কর্মকর্তারা চায়লে তাদের চুক্তি বাতিল করতে পারবেন বলে স্প্যানিশ আইনে উল্লেখ আছে। সেজন্য তারা প্রতি বছরের হিসেবে ২০ দিনের বেতন ক্ষতি পূরণ হিসেবে পাবেন। লিগের মধ্যে ফুটবলারদের চুক্তি বাতিল করার সম্ভাবনা কম। তবে বেতন কমানোর কারণে বার্সার কর্মকর্তারা চাকরি ছাড়তে পারেন।








Leave a reply