পরের বিশ্বকাপটা ‘শুধুই মেসির জন্য’

|

বিশ্বসেরা ফুটবলার। কারো কারো মতে, সর্বকালের সেরা ফুটবলার। কিন্তু আর্জেন্টাইন মহাতারকা লিওনেল মেসির হাতে নেই একটা আন্তর্জাতিক ট্রফি!অথচ দেশের হয়ে ট্রফি জেতাটাকেই সবসময় সবকিছুর ওপরে ঠাঁই দিয়েছেন রেকর্ড ৬ বারের ব্যালন ডি’অরজয়ী তারকা। পেয়েছিলেন সুযোগও। ২০১৪ বিশ্বকাপে খেলেছেন ফাইনাল। একেবারে শেষমুহূর্তে সেবার রচিত হয়েছিল হৃদয়ভাঙার গল্প।

এরপর ২০১৫’র কোপা অ্যামেরিকা ফাইনাল, ২০১৬ কোপা অ্যামেরিকা ফাইনাল, দু’টোতেই হার। সবমিলিয়ে পরপর তিন বছরে ৩টি মেজর ফাইনাল হারের ক্ষত এখনো বয়ে বেড়াচ্ছেন বিশ্বসেরা ফুটবলার। এলএমটেন’র কষ্টটা তার বুক ছাপিয়ে গোটা বিশ্বের কোটি কোটি বুকে ব্যথা বাড়ায়। সতীর্থ কিংবা নিজ দেশের সমর্থকদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। সবাই বুঝেন। তাইতো আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের কোচ লিওনেল স্ক্যালোনি বললেন, আগামী বিশ্বকাপটা শুধুই দেশের কিংবদন্তীকে উৎসর্গ করতে চান তারা। সেজন্যে সবকিছু উজাড় করেই লড়বে তার দলও।

শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) ভোরে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে ইকুয়েডরের বিপক্ষে লড়বে আর্জেন্টিনা। মিশন কাতার বিশ্বকাপে জায়গা করে নেয়া। আর্জেন্টাইন কোচের চোখটা কেবল বাছাইয়ের ম্যাচে নয়। তার নজর বিশ্বকাপের মূল মঞ্চে। কারণটা আর কিছু নয়, মহাতারকা লিওনেল মেসি।

এরইমধ্যে আর্জেন্টিনার হয়ে ৪টি বিশ্বকাপ খেলে ফেলেছেন মেসি। ২০২২ বিশ্বকাপে তার বয়স হবে ৩৫ বছর। সবাই জানেন, সেটিই হতে যাচ্ছে তার শেষ বিশ্বকাপ। তার জন্য এতটুকু করতেই পারে তার দেশ।

ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে লিওনেল স্ক্যালোনি বলেন, আমরা বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করতে চাই দেশের জন্য এটি সত্য। তবে আরো একটা বড় কারণ আছে। সেটি হচ্ছে লিও। আমরা তার জন্য আগামী বিশ্বকাপটায় যেতে চাই। তার জন্য আমরা বিশ্বকাপ জিততে চাই। এটা নিয়ে আমরা অনেক আলোচনা করছি বিষয়টা অমন না। তবে আমরা আসলে এরকমটাই চাই।

গেল বিশ্বকাপেও আর্জেন্টিনার খেলা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছিল। তবে বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে এই ইকুয়েডরের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করে দলকে বিশ্বকাপে নিয়ে যান মেসি। দলের সেরা তারকার কাছে এবারও অবারিত প্রত্যাশা কোচের।

স্ক্যালোনি বলেন, ম্যাচটা কঠিন হতে যাচ্ছে। তবে আমরা ভালো একটা টিম দাঁড় করাতে পারবো এবং প্রতিযোগিতামূলক একটি ম্যাচ হবে। আমাদের দলে একজন মেসি আছে ঠিকই তবে আরো বেশ কয়েকজন ভালো ফুটবলারও আছে।

বার্সায় গেল মৌসুম থেকে একটু নিচের দিকে খেলছেন মেসি। মূলত গোল করার চেয়ে গোল বানিয়ে দেয়ার কাজটাই সামলাচ্ছেন ক্লাবে। তবে আর্জেন্টিনা দলে লিওকে ঘিরেই পুরো পরিকল্পনার ছক সাজাচ্ছেন কোচ।

স্ক্যালোনি বলেন, লিও সবসময়ই একজন স্ট্রাইকার। সে ৯ নাম্বার পজিশনে খেলুক কিংবা অন্য যে কোনো পজিশনে, সবসময়ই সে দলের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকে। আমার মনে হয়না তার জন্য আলাদা কোনো পজিশন প্রয়োজন আছে। সে সবসময় আক্রমনভাগের সামনেই থাকবে।

শৈশবের ক্লাব বার্সেলোনায় আরো এক মৌসুম থাকার সিদ্ধান্তেও সন্তুষ্ট আর্জেন্টাইন কোচ। তিনি বলেন, সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাওয়ার পর আমি লিও’র সঙ্গে কথা বলি। আমি তাকে খুবই শান্ত দেখেছি। ও এখানে আসার পরও ওর সঙ্গে দীর্ঘসময় আলাপ করেছি। দেশে এসে সে খুবই খুশি। ক্লাবেও সে এখন ভালো আছে। আমরা সবসময়ই চেয়েছি সে ভালো খেলুক এবং ফিট থাকুক। আমাদের জন্য এটা ইতিবাচক যে সে বার্সায় থাকছে। কারণ এখানে সে থাকতে অভ্যস্ত, এদের সঙ্গে সে খেলতে অভ্যস্ত। নতুন কোথাও গেলে হয়তো এতো দ্রুত মাঠে নামা হতোনা তার। যাই হোক, সিদ্ধান্ত তার। ফুটবলারদের বিষয়ে আমরা হস্তক্ষেপ করিনা।

দেশের হয়ে একটা ট্রফিতে চুমু আঁকার মেসির আজন্ম তৃষ্ণার্ত ঠোঁট, আর্জেন্টিনার তিন দশকেরও অপেক্ষার প্রহর আর সমর্থকদের দীর্ঘশ্বাস, সবকিছুর সমাধান কি হবে ২০২২ বিশ্বকাপে? কাতারের উত্তপ্ত বাতাস ছড়াবে একপশলা স্বস্তি? অপেক্ষা…








Leave a reply