ধোনির চেন্নাইকে নিয়ে খেললেন স্যামসন

|

একটা করে বল মারছেন, আর উড়ে উড়ে লাগছে স্টেডিয়ামের একেবারে ওপরের ছাউনিতে। দুই-তিনটা বল তো স্টেডিয়ামের বাইরেই চলে গেলো! এককথায় সঞ্জু স্যামসন দানবীয় রূপে হাজির হয়েছিলেন রাজস্থান রয়্যালসের প্রথম ম্যাচে। পাওয়ার হিটিংয়ে ওয়ান ডাউনে নেমে এই ব্যাটসম্যান মাত্র ৩২ বলে খেলেছেন ৭৪ রানের বিধ্বংসী ইনিংস। ছয়ের মার ৯টি, বাউন্ডার একটি। যাতে চেন্নাই সুপার কিংসকে দেখতে হলো এবারের আইপিএলের প্রথম হার। সমান্তরালে জয় দিয়ে শুরু হলো রাজস্থানের মিশন।

মঙ্গলবার রাতে শারজার ম্যাচ ১৬ রানে জিতেছে রাজস্থান। স্যামসন ও স্টিভেন স্মিথের হাফসেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ২০ ওভারে তারা স্কোরে জমা করে ৭ উইকেট ২১৬ রান। ফাফ ডু প্লেসির ৩৭ বলে ৭২ রানের ইনিংসটিও বাঁচাতে পারেনি ধোনির চেন্নাইকে। ৬ উইকেটে তাদের ইনিংস শেষ হয় ২০০ রানে।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা রাজস্থানের শুরুটা সুবিধার না হলেও ওপেনিংয়ে নেমে স্যামসনকে যোগ্য সঙ্গ দিয়েছেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। মাথার আঘাত কাটিয়ে রাজস্থানের ইনিংস শুরু করা অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান ঠাণ্ডা মাথায় তবে প্রয়োজনে হাত খুলে ৪৭ বলে খেলেছেন ৬৯ রানের কার্যকরী ইনিংস। ৪ বাউন্ডারি ও ৪ ছক্কায় সাজানো তার ইনিংসটির সঙ্গে শেষ দিকে জোফরা আর্চারের ৮ বলে অপরাজিত ২৭ রানের ইনিংসে ভর দিয়ে রাজস্থানের রান ২০০ ছাড়ায়।

শারজার ম্যাচ দিয়ে ২০২০ সালের আইপিএল শুরু করেছে রাজস্থান। চেন্নাইয়ের বিপক্ষে এই ম্যাচ দিয়ে শুধু আইপিএল নয়, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেই অভিষেক হয়েছে যশস্বী জয়সওয়ালের। ১৮ বছর বয়সী বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের সঙ্গে ইনিংস শুরু করেন স্মিথ। মাত্র ৬ রানে জয়সওয়াল প্যাভিলিয়নে ফেরার পর শুরু স্যামসনের তাণ্ডব। একের পর এক বল গ্যালারিতে ফেলেছেন এই উইকেটকিপার।

তার ব্যাটিংয়ের সামনে চেন্নাইয়ের সব বোলারকেই কঠিন পরীক্ষা দিতে হয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি মার খেয়েছেন পিযুশ চাওলা। এই লেগ স্পিনার প্রথম ২ ‍ওভারে দিয়েছেন ৪৭ রান! দীপক চাহার, রবীন্দ্র জাদেজা, লুঙ্গি এনগিদি কেউ বাদ পড়েননি। তাদের ওপর ঝড় তুলে মাত্র ১৯ বলে হাফসেঞ্চুরি পেয়ে যান স্যামসন। এনগিদির বলে আউট হওয়ার আগে ম্যাচসেরার পুরস্কার জয়ী খেলেন ৭৪ রানের অবিশ্বাস্য এক ইনিংস।

তার আউটের পরপরই রানের খাতা খোলার আগে রানআউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ডেভিড মিলার। রবিন উথাপ্পাও (৫) পারেননি। ব্যর্থ হয়েছেন রাহুল তেওয়াতিয়া (১০) ও রিয়ান পরাগ (৬)। তবে একপ্রান্ত আগলে ছিলেন অধিনায়ক স্মিথ। স্যাম কারেনের বলে প্যাভিলিয়নে ফেরার আগে ৪৭ বলে করে যান ৬৯ রান।

স্যামসন-স্মিথের দারুণ ব্যাটিংয়ের পরও রাজস্থানের রান ২০০ ছাড়াবে কিনা, এই ছিল সংশয়। তবে জোফরা আর্চারের ঝড়ে সব সংশয় উড়ে যায়। ইংলিশ পেসার ব্যাট হাতে ৮ বলে ৪ ছক্কায় ২৭ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেললে বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় রাজস্থান। টম কারেন অপরাজিত থাকেন ১০ রানে।

চেন্নাইয়ের সবচেয়ে সফল বোলার স্যাম কারেন। ইংলিশ বাঁহাতি পেসার ৪ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে পেয়েছেন ৩ উইকেট। আর একটি করে উইকেট নিয়েছেন চাহার (১/৩১), চাওলা (১/৫৫) ও এনগিদি (১/৫৬)।

২১৭ রানের লক্ষ্যে চেন্নাই ভালো শুরু পেয়েছিল মুরালি বিজয় (২১) ও শেন ওয়াটসনের (৩৩) ব্যাটে। তাদের গড়ে দেওয়া ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছেন ডু প্লেসি। ১ চার ও ৭ ছক্কায় ৩৭ বলে খেলেছেন ৭২ রানের বিধ্বংসী ইনিংস। এরপরও ইনিংসটি কাজে আসেনি দলের হারে। শেষ দিকে অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি ১৭ বলে ৩ ছক্কায় ২৯ রানের ইনিংস খেলে চেষ্টা চালিয়েছিলেন, কিন্তু কাজ হয়নি। দ্বিতীয় ম্যাচে এসে দেখতে হয়েছে প্রথম হার।

রাজস্থানের সবচেয়ে সফল বোলার রাহুল তেওয়াতিয়া। ৪ ওভারে ৩৭ রান দিয়ে এই লেগ স্পিনারের শিকার ৩ উইকেট। আর একটি করে উইকেট পেয়েছেন আর্চার, টম কারেন ও শ্রেয়াস গোপাল।








Leave a reply