কাদের স্বপ্ন হবে পূরন ?

|

কখনো বিশ্বকাপ ট্রফি উঁচিয়ে ধরতে না পারলেও তিন তিন বার ফাইনালে খেলেছে ইংলিশরা। ১৯৯২ বিশ্বকাপ ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ২২ রানে হারের পর আর ফাইনালের মুখ দেখেনি ইংল্যান্ড। দীর্ঘ ২৭ বছর অপেক্ষা শেষে ঘরের মাঠে শিরোপা নির্ধারনী মঞ্চে উঠেছে দলটি। ক্রিকেটের আবিস্কারক এ দেশটির লক্ষ্য এবার প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ শিরোপা ছুঁয়ে দেখা।

১৯৭৯, ৮৭ ও ৯২ এর বিশ্বকাপে তাদের হতাশ করেছে প্রতিপক্ষরা। এবার নিয়ে বিশ্বকাপের আয়োজক হয়েছে পাঁচবার। তাদের মতো কখনো শিরোপা জেতা হয়নি আগামীকালের ফাইনালের প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ডের। ঘরের আঙিগনায় আনাড়ি কিউদের বিপক্ষে এবার স্বপ্ন পূরণের অভিযানে নামবে উইয়ন মরগানের দল।

জোফরা আর্চারের দুর্দান্ত বিশ্বকাপ অভিষেকে এবার প্রথম ম্যাচেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১০৪ রানে হারিয়ে ওভালে নিজেদের জানান দিয়েছিল আয়োজক ইংল্যান্ড। এরপর ট্রেন্ট ব্রিজে পাকিস্তানের বিপক্ষে হেরে কিছুটা ধাক্কা খায় দলটি। তবে পরের তিন ম্যাচে কার্ডিফ, সাউদাম্পটন আর ম্যানচেস্টারে বাংলাদেশ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে দাপুটে জয় আত্মবিশ্বাস ফেরে তাদের। এরপর শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পরপর দুই ম্যাচে হারায় তাদের সেমিতে খেলা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়। তবে পরের দুই ম্যাচে শক্তিশালী ভারত ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয় দিয়ে সেমিফাইনালের টিকিট পায় ইংলিশরা।

হাই ভোল্টেজ সেমিফাইনালে শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়াকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পায় ইংল্যান্ড। অ্যাশেজ প্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে গ্রুপপর্বে হারলেও সেমিফাইনালে কঠিন বদলা নিয়েছে বেন স্টোকস-জেসন রয়রা।

এজবাস্টনে সেমিফাইনালে টস জিতে ব্যাটিংয়ে যাওয়া অস্ট্রেলিয়া ১৪ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে। শেষপর্যন্ত জোফরা আর্চার ক্রিস ওকসদের বোলিং তোপে ধসিয়ে যায় পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংলাইনআপ।

ওই ম্যাচে দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ৬৫ বলে ৮৫ রান করে জেসন রয় নামের প্রতি সুবিচার করেন। এরপর মরগান ৪৫ আর ‍রুটের ৪৯ রানের ইনিংস ভর করে অস্ট্রেলিয়ার ২২৪ রানের সহজ লক্ষ্যে পৌঁছে যায় তারা। এর মধ্য দিয়ে চতুর্থবারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে পা রাখে ইংলিশরা।

১৯৯২ সালের পর আবারো বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংলিশরা। সেবার মেলবোর্নের ফাইনালে হেরে হতাশা নিয়ে বাড়ি ফেরে তারা। হোম অব ক্রিকেট লর্ডসে এবার হয়তো ভক্তদের আর হতাশ করতে চাইবে না থ্রি লায়ন্সরা।








Leave a reply