হু হু করে বাড়ছে ঋণ

|

করোনা মহামারি গেল বছর বিশ্বের ঋণের ঝুলিতে যোগ করেছে আরও ২৪ ট্রিলিয়ন ডলার। বর্তমানে সারাবিশ্বে মোট ঋণের পরিমাণ ২শ’ ৮১ ট্রিলিয়ন ডলার।

করোনার কারণে ঋণের ভারে জর্জরিত সারাবিশ্ব। এ ভাইরাসের সংক্রমণে স্বাস্থ্যখাতে সুরক্ষা দিতে, আর্থিক ব্যবস্থা সচল রাখতে আর ভ্যাকসিন তৈরিতে অনেক অর্থ ব্যয় করেছে প্রায় সব দেশের সরকার। এতেই সারাবিশ্বের মোট ঋণ ২শ’ ৮১ ট্রিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে। ২০২০ সালেই সারাবিশ্বে মোট ঋণ বেড়েছে ২৪ ট্রিলিয়ন ডলার।

ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স বলছে, সরকারি ব্যয় অস্বাভাবিকহারে বাড়ায় আকাশ ছুঁয়েছে ঋণের বোঝা।

এরমধ্যে করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর ঋণ বেড়েছে সাড়ে ৫ ট্রিলিয়ন ডলার, ব্যাংক আর বাসাবাড়িতে ঋণ বেড়েছে ৪ ট্রিলিয়ন আর আড়াই ট্রিলিয়ন ডলার। সারাবিশ্বের মোট জিডিপি প্রবৃদ্ধির তুলনায় অনেক বেশি হয়েছে মোট ঋণ। এই ঋণ ২০০৮-২০০৯ সালের মহামন্দার চেয়ে অনেক বেশি।

সংস্থাটি বলছে, চলতি বছর আরও ১০ ট্রিলিয়ন বাড়বে পুরো বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকারের মোট ঋণ, এ পরিমাণ ছাড়াবে ৯২ ট্রিলিয়ন ডলার।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশ আর যুক্তরাষ্ট্রে তো আকাশ ছুঁয়েছে মাথাপিছু ঋণ। এদিকে, ঋণ অস্বাভাবিকহারে বেড়েছে চীন, তুরস্ক, দক্ষিণ কোরিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত, দক্ষিণ আফ্রিকা আর ভারতের ঋণ। দেউলিয়া হওয়ার পথে অনেক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান।

অন্যান্য বছরের তুলনায় গেলো বছর অনেক বেড়েছে বিভিন্ন দেশের সরকারি পর্যায়ে ব্যয়। কোভিড নাইনটিন সংক্রমণ রোধে লকডাউন ঘোষণার পর এক রকম স্থবির হয়ে পড়ে সারা বিশ্বের আর্থিক ব্যবস্থা। চাকরি হারান কোটি কোটি মানুষ। সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন প্রণোদনা ঘোষণা করা হয়, বিনিয়োগ বাড়ানো হয় স্বাস্থ্যখাতে। আর্থিক অনেক প্রতিষ্ঠান দেউলিয়া হয়ে যায়। বিশেষ করে এয়ারলাইন্স ইন্ডাস্ট্রি মুখ থুবড়ে পড়ে। সব প্রতিষ্ঠান আর দেশের নাগরিকদের জন্য দেয়া হয় প্রণোদনা।

সবশেষ ভ্যাকসিনের জন্য গবেষণা, ভ্যাকসিন প্রস্তুত আর সরবরাহে বিনিয়োগে অনেক অর্থ ব্যয় হচ্ছে উন্নত দেশগুলোর সরকারের। এতে বেড়েই চলেছে সারাবিশ্বের মোট ঋণ। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক আর্থিক গবেষেণা প্রতিষ্ঠানের প্রতিবেদন বলছে, ঋণের অর্ধেকের বেশিই সরকারি ব্যয়। ঋণ বেড়েছে এমন দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষ অবস্থানে আছে ফ্রান্স, এরপরের অবস্থানে আছে স্পেন, গ্রিস, ব্রিটেন আর বেলজিয়াম। ঋণ বেড়েছে এমন ৫০টি দেশের তালিকায় নিচের অবস্থানে আছে পাকিস্তান, আর্জেন্টিনা, জাপান। ঋণ বাড়ার দেশের তালিকায় দশম অবস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র।

উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা আর ভারত ঋণের বোঝায় সবচেয়ে বিপর্যস্ত অবস্থায়। ২০২০ সালে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বৈদেশিক ঋণ বেড়ে পৌঁছেছে সাড়ে ৮ ট্রিলিয়ন ডলারে।

ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স বলছে, গেলো বছর বৈদেশিক ঋণ অস্বাভাবিকহারে বেড়েছে।








Leave a reply