পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার

|

পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়েছে। ২০২১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) রবিবার (২০ সেপ্টেম্বর) ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার করে নিয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা গাজী তৌহিদুল ইসলাম। আজই এনবিআর এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করবে বলে জানা গেছে।

গত সপ্তাহে ভারত হঠাৎ করে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিলে বাংলাদেশে পেঁয়াজের দাম বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যায়। এরপর পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে নানা উদ্যোগ নেয় সরকার।

গত ৭ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ আমদানির ওপর আরোপিত ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে এনবিআরকে চিঠি দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

সেই চিঠিতে বলা হয়, পেঁয়াজ আংশিক আমদানি নির্ভর একটি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য। নিকট অতীতে এই পণ্যটির বাজার বেশ কয়েকবার অস্থিতিশীল হয়েছে। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে এই সংকট মারাত্মক আকার ধারণ করেছিল। বর্তমান বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনায় দেখা যায়, পণ্যটির মূল্য সম্প্রতি অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। মূলত আমদানি মূল্য বৃদ্ধি পাওয়া এর একটি অন্যতম কারণ।

৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহারের ফলে আমদানিকারকদের সুবিধা হবে এবং তারা পেঁয়াজ আমদানিতে উৎসাহী হবে বলে জানিয়েছে বাণিজ্য এবং অর্থ মন্ত্রণালয়।

ব্যবহার
মানবসভ্যতার ইতিহাসের আদিযুগ থেকেই পিঁয়াজের ব্যবহার শুরু হয়েছে। পৃথিবীর প্রায় সব খানের সমাজেই বিভিন্ন রান্নায় পিঁয়াজ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। বর্তমানে কাচা , জমানো, আচার , চূর্ণ, কুঁচি, ভাজা, এবং শুকনো করা পিঁয়াজ ব্যবহার করা হয়। শুধু পিঁয়াজ সাধারণত সরাসরি খাওয়া হয়না, বরং পিঁয়াজ কুঁচি বা ফালি করে কাচা অবস্থায় সালাদএ , অথবা রান্নাতে উপকরণ হিসাবে ব্যবহার করা হয়। পিঁয়াজ বিভিন্ন রকমের হতে পারে – ঝাঁঝালো, মিষ্টি , তিতা।

বাংলাদেশী লাল পিঁয়াজ
পিঁয়াজকে ভিনেগার বা সিরকাতে ডুবিয়ে আচার বানানো হয়। দক্ষিণ এশিয়ার খাদ্যে পিঁয়াজ একটি মৌলিক উপকরণ, এবং প্রায় সব রান্নাতেই পিঁয়াজ ব্যবহার করা হয়। পিঁয়াজের কোষের আকার বেশ বড় বলে বিজ্ঞান শিক্ষায় মাইক্রোস্কোপের ব্যবহার ও কোষের গড়ন শেখাতে পিঁয়াজের কোষ ব্যবহার করা হয়।








Leave a reply