করোনা আক্রান্ত স্ত্রীর জন্য দোয়া চাইলেন শামীম ওসমান

|

করোনা সঙ্কটে নারায়ণগঞ্জের সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ‘মমতাময়ী মা’ উপাধি পাওয়া নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমানের স্ত্রী সালমা ওসমান লিপি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। স্ত্রীসহ পরিবারের সদস্যদের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন শামীম ওসমান।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) লিপি ওসমানের করোনা আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান।

জানা গেছে, লিপি ওসমান বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বাড়িতে থেকেও তিনি মানুষের সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন। শহরের বাবুরাইল দেওভোগ এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত প্যারালাইজড রোগীর বাড়িতে স্বেচ্ছাসেবী পাঠিয়ে আর্থিক সহায়তা দান করেন তিনি।

সমাজকর্মী রোমান চৌধুরী সুমন বলেন, শনিবার লিপি ওসমানের হয়ে শহরের নয়াপাড়া এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হুমায়ন কবীর কাবিলের জন্য আর্থিক সহায়তা পৌঁছে দিই। সেই সময় লিপি ওসমান করোনায় আক্রান্ত হলেও একবারের জন্যও আমাদের বুঝতে দেননি। প্যারালাইজড রোগীর বাড়িতে আর্থিক সহায়তা পৌঁছে দিয়ে তিনি ওই সময় কাবিলের স্ত্রী নুপুরের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বলেন। ওই সময় লিপি ওসমান ঠিকমতো শ্বাস নিতে পারছিলেন না। কথা বলার সময় বারবার লিপি ওসমানকে শ্বাসকষ্ট হচ্ছে কিনা তা জিজ্ঞসা করলেও তিনি বলেন ঠিক আছি। তিনি শুধু এতটুকু বলেন ‘আমি ঠিক আছি, দোয়া করো সবাই’।

এদিকে বুধবার শামীম ওসমান বলেন, অসুস্থ অবস্থায় ও (লিপি) যখন আরেক মৃত্যুপথযাত্রী রোগীর খোঁজ খবর নিচ্ছিল আমি অনেকটা বিরক্ত হয়েছিলাম। বলছিলাম তুমি খুব অসুস্থ। কিন্তু এটা আল্লাহর রহমত। করোনায় আক্রান্ত হয়েও সে (লিপি) মানুষের জন্য কাজ করছে। আমাদের মানুষের দোয়া দরকার। আল্লাহ মানুষের দোয়া কবুল করেন। আমি আমার পরিবারের জন্য দোয়া ভিক্ষা চাচ্ছি। আপনাদের একজনের দোয়াও যদি আল্লাহ কবুল করেন, হয়ত আমার পরিবার সুস্থ হয়ে উঠবে।

কর্মজীবন
১৯৯৬ সালে ৭ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ওসমান সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে অবস্থান হারানোর পরে, তিনি ভারত এবং কানাডায় আত্মগোপনে চলে গিয়েছিলেন। [২] প্রায় আট বছর পর, ২০০৯ সালের এপ্রিলে তিনি নারায়ণগঞ্জে ফিরে আসেন, যখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দল ক্ষমতায় ফিরেছিল। [২] ২০১১ সালে, তিনি সেলিনা হায়াৎ আইভীর কাছে নারায়ণগঞ্জ সিটি মেয়র নির্বাচন হেরে যান। [৫] ২০১৪ সালের বাংলাদেশ সাধারণ নির্বাচনের জন্য দলটি ওসমানকে নারায়ণগঞ্জ -৪ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য নির্বাচিত কবরী সরোয়ারকে বাদ দিয়েছিল। [২][৬] তিনি নারায়ণগঞ্জ -৪ আসন থেকে সপ্তম, দশম ও একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী সংসদ সদস্য।

পারিবারিক জীবন
ওসমানের বড় ভাই নাসিম ওসমান জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ছিলেন। [৭] তার ছোট ভাই সেলিম ওসমান জাতীয় পার্টি থেকে সংসদ সদস্য। [৮] তাদের বাবা এ. কে. এম. শামসুজ্জোহা ছিলেন বাংলাদেশের প্রথম সংসদ সদস্য এবং তাদের দাদা এম ওসমান আলী ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। [৯] ছাত্র জীবনে সরকারি তোলারাম কলেজে লেখাপড়া করাকালীন মহিলা কলেজে অধ্যয়নরত সালমা ওসমান লিপির সাথে পরিচয় ও প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। পরবর্তীতে ১১ জুলাই ১৯৮৭ সালে সালমা ওসমান লিপির সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তিনি। তাদের পুত্র অয়ন ওসমান ও কন্যা অঙ্গনা ওসমান ।








Leave a reply