হাদিসের শিক্ষা

|

দারিদ্র্য জয় করে জ্ঞানার্জন

আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমি ৭০ জন আসহাবে সুফফাকে দেখেছি, তাদের কারো গায়ে বড় চাদর ছিল না। হয়তো ছিল শুধু লুঙ্গি কিংবা ছোট চাদর, যা ঘাড়ে বেঁধে রাখতেন। (নিচের দিকে) কারো নিসফে সাক বা হাঁটু ও টাখনুর মধ্যবর্তী আর কারো টাখনু পর্যন্ত ছিল। তারা লজ্জাস্থান দেখা যাওয়ার ভয়ে কাপড় হাত দিয়ে ধরে রাখতেন। (বুখারি, হাদিস : ৪৪২)

তাহিয়্যাতুল মসজিদ

জাবির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বলেন, আমি নবী (সা.)-এর কাছে এলাম। তিনি তখন মসজিদে ছিলেন। বর্ণনাকারী মিসআর (রা.) বলেন, আমার মনে পড়ে বর্ণনাকারী মুহারিব (রহ.) চাশতের সময়ের কথা বলেছেন। তখন নবী (সা.) বলেন, তুমি দুই রাকাত নামাজ আদায় করো। জাবির (রা.) বলেন, নবী (সা.)-এর নিকট আমার কিছু পাওনা ছিল। তিনি তা আদায় করে দিলেন; বরং কিছু বেশি দিলেন। (বুখারি, হাদিস : ৪৪৩)

আবু কাতাদাহ সালামি (রা.) থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেছেন, তোমাদের কেউ মসজিদে প্রবেশ করলে সে যেন বসার আগে দুই রাকাত নামাজ আদায় করে নেয়। (বুখারি, হাদিস : ৪৪৪)

মসজিদ নির্মাণে সহযোগিতা

ইকরিমাহ (রহ.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ইবনে আব্বাস (রা.) আমাকে ও তাঁর ছেলে আলী (রহ.)-কে বলেন, তোমরা উভয়ই আবু সাঈদ (রা.)-এর কাছে যাও এবং তাঁর থেকে হাদিস শুনে আসো। আমরা গেলাম। তখন তিনি একটা বাগানে কাজ করছেন। তিনি আমাদের দেখে চাদরে হাঁটু মুড়ি দিয়ে বসলেন এবং পরে হাদিস বর্ণনা শুরু করেন। শেষ পর্যায়ে তিনি মসজিদ-ই-নববী নির্মাণ আলোচনায় এলেন। তিনি বলেন, আমরা একটা একটা করে কাঁচা ইট বহন করছিলাম আর আম্মার (রা.) দুটি দুটি করে কাঁচা ইট বহন করছিলেন। নবী (সা.) তা দেখে তার দেহ থেকে মাটি ঝাড়তে লাগলেন এবং বলতে লাগলেন, ‘আম্মারের জন্য আফসোস, তাকে বিদ্রোহী দল হত্যা করবে। সে তাদের আহ্বান করবে জান্নাতের দিকে আর তারা তাকে আহ্বান করবে জাহান্নামের দিকে। আবু সাঈদ (রা.) বলেন, তখন আম্মার (রা.) বলেন, ‘আমি ফিতনা থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাই।’ (বুখারি, হাদিস : ৪৪৭)








Leave a reply