শীতকালে তুলসী কীভাবে ব্যবহার করবেন তা জেনে রাখুন ,এতে আপনি সর্দি থেকে মুক্তি পাবেন

|

তুলসী পাতা, সর্দি এবং কাশি: আপনি শীত-শীতে তুলসী ব্যবহার করতে পারেন। এটি একটি অত্যন্ত কার্যকর চিকিৎসা তুলসীর কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই, বরং এটি আরও অনেক স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান করে।
স্বাস্থ্য নিউজ, তুলসী, কাশি এবং সর্দি:
শীত আবহাওয়ার কারণে হোক বা কম রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকুক না কেন, আমাদের বেশিরভাগই সংক্রমণের শিকার হয় এবং সর্বাধিক সাধারণ হ’ল ঠান্ডা এবং জ্বর। তবে আপনার শরীরের তাপমাত্রা হ্রাস করার জন্য প্যারাসিটামল বা কফির সিরাপ গ্রহণের পরিবর্তে আপনার ঘরে তুলসী ব্যবহার করে আপনার সর্দি এবং সর্দি হ্রাস করা উচিত। তুলসী গলা এবং ক্লেম কমাতে সাহায্য করে। তুলসীর কাঁচা পাতাগুলি প্রয়োগ বা একটি পেস্ট তৈরি করা ঠান্ডাজনিত সাধারণ সর্দি এবং জ্বরের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে। আসুন জেনে নিই কীভাবে তুলসী সর্দি-সর্দি-কাশি থেকে মুক্তি দেয়।

গলা পরিষ্কার করে:
তুলসী ব্রঙ্কিয়াল এয়ারওয়েজকে অবিরাম এবং পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করতে পারে যা শ্বাস প্রশ্বাসকে আরও সহজ করে তোলে।


গলা ব্যথা কমাই :
গলা, কাশি এবং সর্দি-কাশির নিরাময়ে তুলসী প্রাচীন কাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। একটি সমীক্ষা অনুসারে, তুলসীর পানি গলা ব্যথা কমাতে সহায়তা করে। তুলসী পাতা অ্যাডাপ্টোজেন হিসাবে কাজ করে। অ্যাডাপটোজেন এমন একটি পদার্থ যা দেহের স্ট্রেসের প্রভাব হ্রাস করতে সহায়তা করে।


গলার সংক্রমণ হ্রাস করে:
একটি ২০১৪ সমীক্ষায় দেখা গেছে যে তুলসী জল থেকে বাষ্প গলার সংক্রমণ হ্রাস করে কারণ এটিতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে।
সর্দি কাটার জন্য তুলসী পাতা কীভাবে ব্যবহার করবেন:


তুলসী চা:
পানিতে কিছু তুলসী পাতা দিন এবং এটি প্রায় ৫-১০ মিনিট ফুটতে দিন। স্বাদে মধুও যোগ করতে পারেন। তারপরে এটি ফিল্টার করুন এবং দিনে কমপক্ষে ২ বার এটি পান করুন। এটি আপনার সর্দি এবং সর্দি নিরাময়ে সহায়তা করবে, পাশাপাশি ম্যালেরিয়া এবং ডেঙ্গুর লক্ষণগুলি হ্রাস করতে সহায়তা করবে।


তুলসীর রস:
তুলসীর রস আপনার দেহের তাপমাত্রা কমিয়ে দেয়। এটি বাচ্চাদের পক্ষে আরও কার্যকর। তুলসী পাতা পানিতে সিদ্ধ করে নিন এবং এরপরে এটি ফিল্টার করে ২-৩ ঘন্টার ব্যবধানে পান করুন।








Leave a reply