যৌতুকের দাবিতে পেটালেন শ্বশুর, উদ্ধার করলেন স্বামী

|

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় যৌতুক হিসেবে স্বামীর বাবাকে জমি লিখে না দেওয়ায় নার্গিস খাতুন (৩০) নামে এক গৃহবধূকে বেধড়ক মারপিট করে চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। নার্গিস এখন সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

রোববার রাতে উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের মহেশপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, মহেশপুর গ্রামের হবিবুর রহমানের ছেলে শফিকুল ইসলামের সঙ্গে একই গ্রামের হাজী ইব্রাহিম হোসেনের মেয়ে নার্গিসের খাতুনের সঙ্গে প্রায় ১০ বছর আগে বিয়ে হয়। নার্গিসের দুইটি সন্তান রয়েছে। ভালোবাসার বিয়ে হওয়ায় প্রথম থেকেই শফিকুলের বাবা, মা ও তার পরিবারের সদস্যরা নার্গিসকে বউ হিসেবে মেনে নিতে পারেননি। প্রায়শই তাকে গালমন্দ ও নির্যাতন করা হতো। বেশ কিছুদিন আগে শফিকুলের বাবা হবিবুর মেয়ের বাবাকে তাদের (হবিবুর) বাড়ি সংলগ্ন একখণ্ড ভিটে যৌতুক হিসেবে তার নামে লিখে দেওয়ার প্রস্তাব দেন। নার্গিস সে প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তার ওপর নির্যাতন বেড়ে যায়।

হাসপাতালের শয্যায় যন্ত্রণায় কাতরাতে কাতরাতে নার্গিস খাতুন জানান, চলমান ঘটনার রেশ ধরে রোববার রাতে তার শ্বশুর হবিবুর রহমান এবং পরিবারের অন্যাদের মধ্যে শরিফ, জামাল, আম্বিয়া ও ফতে মিলে তাকে বেধড়ক মারধর করেন। এক পর্যায়ে কাঁচি দিয়ে তার মাথার চুলের বেশ কিছু অংশ কেটে দেওয়া হয়। পরে তার স্বামী ও বাবার বাড়ির লোকজন তাকে উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।

এসময় নার্গিস খাতুন তাকে যারা মারধর, নির্যাতন ও চুল কেটে দিয়েছেন তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

এদিকে খবর পেয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দীপক কুমার দাশ সিরাজগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে আহত অসুস্থ নার্গিস খাতুনকে দেখতে যান। তিনি নার্গিসের কাছ থেকে তার ঘটনার বিস্তারিত শোনেন।

দীপক কুমার দাশ গণমাধ্যম কর্মীদেরকে জানান, নার্গিসের মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে ইতোমধ্যেই শ্বশুর এবং তার সঙ্গে অংশ নেওয়া নির্যাতনকারীদের আটকের জন্য এলাকায় পুলিশ পাঠিয়েছেন। যেকোন মূল্যে অপরাধীদের আটক করা হবে।








Leave a reply