ভেজাল মধু চেনার সহজ ৯ উপায়

|

মধু এক ধরণের ওষুধী গুণের অধিকারী। বিভিন্ন ঘায়ের ক্ষত সারে এই মধু দিয়ে। ঠাণ্ডার সময় শরীর গরম রাখতে সাহায্য করে মধু। কিন্তু বাজার থেকে কিনে আনা এই মধু কতখানিই বা আসল তা কে বলতে পারে! হয়তো মনের অজান্তে ভেজাল মধু খেয়ে শরীরের উপকারের থেকে বরং বেশি ক্ষতি করছি।

তাই ভেজাল মধু চেনা অত্যন্ত জরুরি। কিছু উপায় আছে যা ভেজাল মধু চেনাতে সাহায্য করবে।

১) মধুতে কখনও কটু গন্ধ থাকবে না। খাঁটি মধুর গন্ধ হবে মিষ্টি ও আকর্ষণীয়।

২) মধুর স্বাদ হবে মিষ্টি, এতে কোনও ঝাঁঝালো ভাব থাকবে না।

৩) বেশ কিছুদিন ঘরে রেখে দিলে মধুতে চিনি জমতেই পারে। কিন্তু যদি বয়ামসহ মধু গরম পানিতে কিছুক্ষণ রেখে দেখুন, এই চিনি গলে মধু আবার স্বাভাবিক হয়ে আসবে। কিন্তু নকল মধুর ক্ষেত্রে এটা হবে না।

৪) গ্লাসে বা বাটিতে খানিকটা পানি নিন। তার মধ্যে এক চামচ মধু দিন। যদি মধু পানির সঙ্গে সহজেই মিশে যায়, তাহলে বুঝবেন যে এটা অবশ্যই নকল। আসল মধুর ঘনত্ব পানির চাইতে অনেক বেশি, তাই তা সহজে মিশবে না। এমনকি নাড়া না দিলেও মধু পানিতে মিশবে না।

৫) একটি মোমবাতি নিয়ে সেটির সলতেটি ভালভাবে মধুতে ডুবিয়ে নিন। এবার আগুন দিয়ে জ্বালাবার চেষ্টা করুন। যদি জ্বলে ওঠে, তাহলে বুঝবেন যে মধু খাঁটি। আর যদি না জ্বলে, বুঝবেন যে মধুতে পানি মেশানো আছে।

৬) এক টুকরো ব্লটিং পেপার নিন, তাতে কয়েক ফোঁটা মধু দিন। যদি কাগজ তা সম্পূর্ণ শুষে নেয়, বুঝবেন মধুটি খাঁটি নয়।

৭) এক টুকরো সাদা কাপড়ে মধু মাখান। আধ ঘণ্টা রাখুন। তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। যদি দাগ থেকে যায়, বুঝবেন মধুটি খাঁটি নয়।

৮) শীতের দিনে বা ঠাণ্ডায় যদি দানা না বাঁধে তাহলে সেটি খাঁটি মধু না। খাঁটি মধু ঠাণ্ডায় জমাট বেঁধে যায়।

৯) পিঁপড়া যদি মধুর ধারে কাছে না ঘেসে তবে তা খাঁটি মধু। আর পিঁপড়া যদি তা পছন্দ করে তবে মধুতে ভেজাল আছে।

সূত্র : জি নিউজ।








Leave a reply