ভাগ্য বিচার হাতের মণিবন্ধ ও হাত থেকে

|

হাতের আকার থেকে অদৃষ্ট:- জ্যোতিষ শাস্ত্রানুসার কোন মানুষের হাত সাধারণত: চার আকৃতির হতে পারে।খুব ছোট আকৃতির হাত: এইরকম হাত ভবঘুরের লক্ষণ বা মানসিক ভারসাম্য হীণতার প্রতীক।
এইরকম হাতের লোক সভ্যতার কোন ধার ধারে না, চিন্তা ক্ষমতা ও কাজের ক্ষেত্রে দুর্বলতা প্রকাশ পায়। এই রকম হাতের জাতকের মধ্যে নিষ্ঠুরতা ও পশুভাবপন্নতা বেশী মাত্রায় থাকতে দেখা য়ায়।
সামান্য ক্ষুদ্র হাত:- এরকম হাতের মানুষ খুবই ভালো মনের মানুষ হয়, সবসময় মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে এরা চলেন। এরা সুন্দরের পূজারী হয়ে থাকেন, সাজগোজ করতে ভালোবাসেন, এরকম হাতের মেয়েরা খুবই আদর্শ ও রোমান্টিক প্রেমিকা হয়ে থাকেন। এয়ের মধ্যে অনেক ধরণের প্রতিভা থাকতে দেখা যায়।
সাধারণ হাত:-হাতের আকৃতি সাধারণ হলে ধারণাশক্তি তীব্র হয়, জাতক খুবই কর্মঠ, পরিশ্রমী, বাস্তবপন্থী, স্বাস্থ্যবান ও বলিষ্ঠ শরীরের অধিকারী হয়। এদের চিন্তা ধারণাও খুবই মজবুত ও সময়োপযোগী হয়ে থাকে এই জন্য এরকম হাতের জাতক খুব সহজেই যে কোন জায়গায় নিজেকে মানিয়ে নিতে পারে।
লম্বা হাত:-লম্বা হাতের লোক আদর্শ প্রেমিক, দার্শনিক ও প্রখর প্রতিভাবান হয়ে থাকেন। এরা জীবনে খুব ভোগী বিলাসী প্রবন হয়ে থাকেন। এদের মধ্যে বিশ্লেষণশক্তি খুবই বেশী থাকে, রাজনীতিতেও এরকম জাতক খুব সহজেই উঁচু পদ লাভ করতে পারেন।

খুব লম্বা হাত:- শরীরের আকৃতির তুলনায় হাত খুব বেশী লম্বা হলে তা মনের মধ্যে দ্ধন্ধ, খামখেয়ালী প্রকাশ করে থাকে। জাতকের মধ্যে খুবই সন্দেহ প্রবণ থাকতে দেখা যায় এরকম জাতক অকারণেই নিজের পত্নীর উপরও অনেক সন্দেহ করে থাকেন। তাছাড়া এদের মধ্যে অত্যাচারি প্রবণতাও থাকে যাঁর জন্য এইরকম হাতের জাতক নাতো জীবনে নিজে সূখী হয় আর না তো জীবনে কাউকে সূখী রাখে।
মনিবন্ধ রেখা:-
হাতের কব্জির মধ্যে সামনের দিকে সমান্তরাল ভাবে থাকা রেখাগুলিকে জ্যোতিষ শাস্ত্রে মনিবন্ধ রেখা বলে।
📝যে কোন মহিলার হাতের এই মনিবন্ধের রেখা গুলি যদি সমতল,সুদৃশ্য ও মসৃণ হয় এবং হাত ও করতল যদি একই সমতলে থাকে তবে নারী প্রচুর ঐশ্বর্যশালিনী এবং সৌভাগ্যবতী হয়।।
📝আর যদি এই মনিবন্ধের ক্ষেত্র অত্যধিক শিরাবহুল এবং অসমতল হয় তবে সেই নারী দুঃখিনী, দুরাচারিনী, অসৎ ও কু-কাজে লিপ্ত হয় ।। এমন নারীকে নিজের জীবন সঙ্গিনী করাটা ঠিক নয় ।।
♻কোন মানুষের হাতের কব্জির (মনিবন্ধের)এই রেখাগুলো যদি স্পষ্ট , অভগ্ন ও সরল হয় তাহলে জেনে নেবেন আপনি কোন না কোন চাকুরী নিশ্চয় পাবেন ।
♻আর যদি এই রেখাগুলো অস্পষ্ট , ভগ্ন এবং শৃংখলাকৃতি থাকে তাহলে আপনি ব্যবসায়ী হবেন ।।
🎯মনিবন্ধের এই রেখাগুলো রক্তিম বর্ণের হলে মানুষ খুব বেশি সাহসী হয় ।
🎯মনিবন্ধের স্থানে যদি সুস্পষ্ট অভগ্ন গভীর ও সরল ভাবে বিন্যস্ত 3টি রেখা থাকলে সাধারণত মানুষের আয়ূ অধিক হয় অর্থাৎ এঁরা বেশিদিন বাঁচে।

হাতের হাড় থেকে ভাগ্য:
সাধারণত হাতের মধ্যে ৮টি ছোট হার এবং ৫টি বড়ো হাড় থাকে। কারো হাতের হাড়গুলির অবস্থান যদি স্বাভাবিক ভাবে থাকে তাহলে জাতকের শরীর সুস্থ এবং মানসিক শক্তি ও খুবই তীব্র থাকবে এই সকল জতক যে কোন কাজেই খুব শীগ্রই সফলতা লাভ করতে পারে, পরিশ্রম করতেও এরা পিছপা হয় না।
আর যদি কোন জাতকের হাতের হাড়গুলি বিচ্ছিন্নভাবে থাকে তাহলে তাঁর মধ্যে একটা বিচ্ছিন্ন ভাব ও দৈনতা থাকবে। হাতের হাড়গুলি চওড়া আকৃতির হলে এমন জাতকের শারীরিক শক্তি যদিই বা বেশী থাকে কিন্তু এরা মানসিক দিক থেকে খুবই ভীতু হয় অর্থাৎ এদের মানসিক শক্তি খুবই কম থাকে সামান্য কিছুতেই এরা ঘাবড়ে যান এবং হাতের হাড়গুলি যদি বাঁকানো ভাবে থাকে তাহলে বুঝবেন সেই জাতকের বুদ্ধি ও চিন্তা সর্বদা কুটিলই থাকবে এমন লোকের সথে সম্পর্ক না রাখাটাই ভালো কারণ এরকম লোক খুবই স্বার্থপর হয়ে থাকে, সবসময় শুধু নিজের স্বার্থের কথাই এদের মাথায় থাকে।








Leave a reply