ডিটক্স ওয়াটার বানাবেন যেভাবে?

|

বিশেষজ্ঞদের মতে,প্রতিদিন আট গ্লাস পানি পান করা উচিত। কিন্তু এই পানির সঙ্গে বাড়তি কিছু উপকরণ মিশিয়ে তৈরি করা যেতে পারে শক্তিশালী পানীয়, যাকে ডিটক্স ওয়াটার বলে হয়ে থাকে । ডিটক্স ওয়াটার শরীর থেকে ক্ষতিকারক টক্সিন দূর করে,সেই সাথে শরীরে শক্তি যোগায়। ওজন কমাতে সহায়তা করে।

ডিটক্স ওয়াটার আসলে কী?

তাজা ফল,সবজি ও ভেষজ উপাদান কেটে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ভিজিয়ে রাখার পর পানির যে উপযোগিতা তৈরি হয়, তাকে ডিটক্স ওয়াটার বলে। মূলত, এখানে ফল ও সবজি রস না করে বরং দীর্ঘসময় ভিজিয়ে রাখা হয়। এতে করে ফল ও ভেষজ থেকে গুণাগুণ পানিতে মিশতে শুরু করে। ডিটক্স ওয়াটারের মধ্যে লেবু দিয়ে তৈরি ডিটক্স ওয়াটার সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। এটি শরীরকে ভালোভাবে পরিষ্কার করতে সহায়তা করে।

যেভাবে তৈরি করা যায়

ঘরে বসেই আপনি তৈরি করতে পারেন ডিটক্স ওয়াটার। এজন্য দরকার ফল, সবজি ও ভেষজ। এসব পাতলা করে কেটে হালকা গরম বা ঠাণ্ডা পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। ঠাণ্ডা ডিটক্স ওয়াটার তৈরি করতে জারের পানিতে এসব উপকরণ ভিজিয়ে ১ থেকে ১২ ঘণ্টা পর্যন্ত রাখা যেতে পারে। তবে এর চেয়ে বেশি সময় না রাখাই ভালো, তাহলে ভেজানো উপকরণগুলোর উপযোগিতা নষ্ট হতে পারে।

সংমিশ্রণ করবেন যেভাবে

ডিটক্স ওয়াটার তৈরিতে ফল, সবজি ও ভেষজের উপযুক্ত সংমিশ্রণ খুবই জরুরি। যেমন ডিটক্স ওয়াটার তৈরিতে যদি শসা ব্যবহার করে থাকেন। তাহলে এর সঙ্গে পুদিনা পাতা ভিজিয়ে রাখেন। লেবুর সঙ্গে মরিচ, কমলা,সাইট্রাস ফলের খোসা মেশাতে পারেন। স্ট্রবেরির সঙ্গে তুলসী পাতা, আপেলের সঙ্গে দারুচিনি ব্যবহার করা যেতে পারে। (সূত্র:হেলথলাইন)








Leave a reply