এই নিয়মগুলি মানলেই শ্বশুরবাড়িতে আপনার কন্যা সুখে থাকবে!

|

মেয়ের বিবাহের সময় মা বাবা যত টা বেশি খুশি থাকেন ঠিক তত টাই তাঁরা চিন্তিত থাকেন। বিবা হের পর যখন মেয়ের শ্বশুর বাড়ি চলে যাওয়ার মুহুর্ত আসে তখন গোটা বাড়ি টাই যেন সঙ্গী হীন হয়ে পড়ে। আদরের কন্যাকে বিদায়ের সময় বাড়ির সকলের চোখ জলে ভরে যায়। মা-বাবা এই ভেবেই চিন্তিত হয়ে পড়ে যে, নতুন বাড়ীতে দিয়ে তাঁদের কন্যা সুখী হবে কিনা। এই উদ্বেগ পুরোপুরি কাটিয়ে ওঠা সহজ নয় ঠিকই, তবে কয়েকটি উপায়ের মাধ্যমে পরিস্থিতি উন্নত করতে পারেন। তাই, আপনি যদি চান যে আপনার মেয়ে তার শ্বশুরবাড়িতে খুব সুখে থাকুক তাহলে কিছু উপায় অবলম্বন করতে পারেন। দেখুন সেগুলি কী কী –

১)
বিয়ের পর কন্যা যখন প্রথমবার তার শ্বশুরবাড়িতে যাবে, তখন তাকে হলুদের গাঁট দিন। এটিকে হলুদ কাপড়ে মুড়ে নিজের আলমারিতে রেখে দিতে হবে। এতে বাড়ির আর্থিক অবস্থা ভাল থাকে এবং শ্বশুরবাড়িতে মেয়ের সম্মান বজায় থাকে।

২)
বিয়ের পরে বধূ যদি সাতটি গোটা হলুদের গাঁট, এক টুকরো পিতল এবং সামান্য গুড় নিয়ে তার শ্বশুরবাড়ির দরজায় রাখে, তবে স্বামীর বাড়ীতে মান-সম্মান বাড়ে।

৩)
মেয়ের বিদায়ের সময়, একটি পাত্রে গঙ্গাজল, কিছুটা হলুদ এবং একটি তামার মুদ্রা কন্যার মাথার উপর থেকে সাতবার ঘুরিয়ে নিয়ে কোনও ফাঁকা জায়গায় ফেলে দিন। এর ফলে নববধূ শ্বশুরবাড়িতে সুখী হবেন।

৪)
কন্যা যখন প্রথমবার শ্বশুরবাড়ি যাবে, তখন তাকে নিজের ঘর থেকে একটি নারকেল দিন সঙ্গে নিয়ে যাওয়ার জন্য। এটিকে তার পূজার ঘরে রেখে নিয়মিত পূজা করতে হবে। এতে করে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ভালবাসা থাকবে।

৫)
বিয়ের পরে মেয়ের বিদায়ের সময় নিজের মায়ের কাছ থেকে অল্প সিঁদুর নেওয়া উচিত এবং শ্বশুরবাড়িতে এই সিঁদুর পরা উচিত। এতে নববধূর সৌভাগ্য বাড়ে এবং স্বামীর ভালবাসা পায়।








Leave a reply