৭টি তেল যা আপনার ত্বকের যে কোনো দাগ দূর করতে পারে প্রাকৃতিকভাবে

|

তেল আমাদের ত্বকের নমনীয়তা বজায় রাখার জন্য খুব ভালো উপাদান।ছোটোবেলা থেকেই ছোটো শিশুদের ত্বকের যত্ন করার জন্য তেল মালিশের প্রয়োজন হয়।তেল কিন্তু আমাদের ত্বককে নরম,কোমল করে তোলার জন্য খুব প্রয়োজনীয় এবং উপকারী উপাদান।এছাড়া কিছু এমন তেল আছে যা কিন্তু আমাদের মুখে বা দেহের যে কোনো জায়গায় যে কোনো রকম দাগ,ছোপ যদি থাকে তা দূর করতে সাহায্য করে।এই তেল কিন্তু যে কোনোরকম নামী দামী বিউটি প্রোডাক্টের থেকেও ভালো কারণ এতে কোনো রকম কেমিক্যাল থাকে না।তাই ক্ষতির সম্ভাবনা একেবারেই কম থাকে।ঘরোয়া প্রাকৃতিক ফেসপ্যাকগুলি যদি বানিয়ে উঠতে না পারেন তাহলে কোনো চিন্তা নেই কারণ এই তেল একাই একশো।এরকমই ৭টি তেলের সন্ধান নিয়ে আমি চলে এসেছি আজ।

কোনো রকম ঝামেলা ছাড়াই শুধুমাত্র এই তেল দিয়েই কিন্তু আপনার ত্বকের জেল্লা দ্বিগুণ হয়ে যাবে।এবার থেকে মুখের দাগ ছোপ দূর করার জন্য এই তেলগুলিকেই সঙ্গী করুন।তাই আজকের লেখা পড়ে বিস্তারিত জেনে নিন।

১. স্যান্ডেলউড এসেন্সিয়াল অয়েলঃ আপনারা নিশ্চয়ই জানেন যে মুখে ব্রণ,ফুসকুড়ি ইত্যাদি এবং এর দাগগুলি দূর করতে চন্দনের ফেসপ্যাক ব্যবহার করা হয়।তেমনি এই তেল কিন্তু আপনার মুখের যে কোনো রকমের দাগ একেবারেই মিলিয়ে দেবে।কারণ এতে অ্যান্টি-সেপটিক উপাদান আছে যার হিলিং পাওয়ার এই সব দাগ ছোপ সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে।এই তেলটি নারকেল তেল বা যে কোনো গায়ে মাখার তেলের সাথে মিশিয়ে রোজ আপনি ব্যবহার করতে পারেন।

২.নারকেল তেলঃ ভিটামিন ই আমাদের ত্বকের যে কোনো রকম সমস্যার সমাধানে চিকিৎসকেরা সাধারণত প্রেসক্রাইব করে থাকেন।নারকেল তেল হলো এই ভিটামিন ই এর প্রাকৃতিক ভান্ডার।তাই এই তেল আপনার ত্বকের যে কোনো সমস্যা,বিশেষ করে দাগ ছোপ দূর করার ক্ষেত্রে আপনি নির্ভয়ে এবং নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারেন।নারকেল তেল ও লেবুর রস মিশিয়ে লাগালে দাগ ছোপ একেবারেই দূর হবে।

৩.অলিভ অয়েলঃ অলিভ অয়েলও ভিটামিন ই এর সম্ভার এবং এই তেল খুব সহজেই কিন্তু ডেড সেলগুলিকে পরিষ্কার করে।তাই এই তেল নিয়মিত মাখলে কিন্তু যেমন আপনার ত্বক জেল্লাদার হয়ে ওঠে,তেমনি দেহের যে কোনো অংশে বা বিশেষ করে মুখে কোনো রকম কালো ছোপ থাকলে তা দূর হয়ে যায়।এই তেল কিন্তু আপনি ডাইরেক্ট মুখে বা দেহে লাগাতে পারেন।

৪. ল্যাভেন্ডার অয়েলঃ ল্যাভেন্ডার অয়েল কিন্তু আমাদের সেল রিজেনারেশনের প্রক্রিয়াটিকে বাড়িয়ে দিতে সাহায্য করে।ফলে এই তেল লাগালে খুব তাড়াতাড়ি আমাদের ক্ষত ভরে যায় এবং তার দাগও হালকা হয়ে মিলিয়ে যায়।কোথাও কাটা ছেঁড়া হলে সেখানে ১-২ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অয়েল অল্প জলের সাথে মিশিয়ে সেই অংশে নিয়মিত লাগাতে পারেন।এতে খুব তাড়াতাড়ি আপনার স্কার হালকা হয়ে মিলিয়ে যাবে।

৫.লেমন এসেন্সিয়াল অয়েললঃ লেমন এসেন্সিয়াল অয়েল ভিটামিন সি দ্বারা পরিপূর্ণ।এছাড়া এটি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট দ্বারা পরিপূর্ণ।এই তেল আমাদের ত্বকের মাধ্যমে রক্তের সাথে মিশে আমাদের রক্তের অশুদ্ধিগুলিকে দূর করে।এছাড়া স্কিন রিজেনারেশনকেও বাড়িয়ে তোলে,যার ফলে এই তেল নিয়মিত ব্যবহার করলে আপনার ত্বকে কোনো রকম দাগ বা ছোপ সহজে তার ছাপ ফেলতে পারে না।এছাড়া পুরনো স্কার থাকলে তা দূর করার ক্ষেত্রেও এই তেল উপকারী।এই তেলটি আপনার নিয়মিত ব্যবহার করা তেলের সাথে মিশিয়ে ত্বকে লাগান।

৬. টি ট্রি অয়েলঃ এই তেলে থাকা অ্যান্টি-সেপটিক,অ্যান্টি-বায়োটিক উপাদান আপনার ত্বকের ব্রণ,স্কিন অ্যালার্জি,বলিরেখা,এমন কি সান ট্যান এর থেকে হওয়া দাগকেও দূর করতে সক্ষম।এই তেলটিও আপনার নিয়মিত ব্যবহার করা তেলের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

৭.সর্ষের তেলঃ এই তেলটিও খুব উপকারী ত্বকের যে কোনো দাগ দূর করার ক্ষেত্রে।তবে অনেকের ক্ষেত্রে এই তেল গায়ে মাখলে অ্যালার্জি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।সেক্ষেত্রে সাবধানী হওয়া দরকার।বাকি সবাই কিন্তু আপনার মুখে বা দেহের কোনো অংশের দাগ দূর করার জন্য এই সহজলভ্য কিন্তু উপকারী তেল ব্যবহার করতেই পারেন।

প্রাচীন কালে কিন্তু সাবানের বদলে এই তেলই ছিল মানুষের প্রসাধন সামগ্রী।এমনকি এই তেলই ব্যবহার করা হত ক্রিম বা বডিলোশনের পরিবর্তে।কারণ এই উপাদান সহজেই আমাদের ত্বকের ভেতরে প্রবেশ করে এবং আমাদের ত্বকের মেরামত করে ভেতর থেকেই।তাই আপনিও কিন্তু ট্রাই করে দেখুন এই তেলগুলি।এগুলি সহজেই আপনি যে কোনো প্রসাধন সামগ্রীর দোকানে বা অনলাইনে পেয়ে যাবেন।তাই এখনই কিনে ফেলুন এবং মুখের অবাঞ্ছিত দাগগুলিকে চিরকালের মত বিদায় জানান।








Leave a reply