নিয়মিত যোগাসন অনুশীলনের পাশাপাশি যে ৪টে ফল আপনাকে সুন্দর ত্বক পেতে সাহায্য করবে

|

বিভিন্ন যোগ ব্যয়াম অনুশীলনের ফলে আমাদের শরীর, চুল, ত্বক সুস্থ থাকে। ব্রিদিং এক্সারসাইজ, আসন অনুশীলনের ফলে আমাদের ওজন কমার পাশাপাশি আমাদের আবেগ নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা তৈরি হয়। ফলে হার্ট, ত্বক, চুল সবই সুস্থ থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে প্রতিদিন যোগ ব্যয়াম করলে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ শেহনাজ হুসেনের মতে, সুন্দর, উজ্জ্বল, মসৃণ ত্বকের জন্য যোগ ব্যয়াম অত্যন্ত উপযোগী। বিভিন্ন প্রসাধনী এবং স্যালন ট্রিটমেন্টের পিছনে অযথা সময় এবং অর্থ ব্যয়ের পরিবর্তে যোগ ব্যয়াম করলে শরীরের পাশাপাশি ত্বকের সমস্যাও দূর হয়।

বহু আসন আছে যেগুলো ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। নিয়মিত প্রাণায়ম এবং ধ্যান করলে বলিরেখা, কুঁচকানো চামড়া দূর হয়ে ত্বক উজ্জ্বল ও মসৃণ হয়। নিয়মিত যোগাসন অভ্যাসের ফলে আমাদের বয়স অনেক কম দেখায়। “আমি সব সময় বলেছি, সুস্বাস্থ্য এবং সৌন্দর্য একই মুদ্রার দুই পিঠ। আপনার স্বাস্থ্য ভাল না থাকলে আপনার ত্বকও ভালো থাকবে না। উজ্জ্বল, মসৃণ ত্বক, চকচকে চুল, সুঠাম দেহের জন্য শরীর সুস্থ্য হওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন”, জানান মিসেস হুসেন।

জেনে নিন নিয়মিত যোগাসন আপনার ত্বকের কী কী উপকার করে

1.পেশি মজবুত করে। ভাইটালিটি বাড়ায়। আপনার বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সবল রাখে, স্নায়ুতন্ত্রকে সুস্থ রাখে এবং আমাদের স্ট্রেস কমাতে ও মাথা ঠাণ্ডা রাখতে সাহায্য করে।

2.যোগ ব্যয়ামের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল বিভিন্ন ব্রিদিং এক্সারসাইজ। নির্দিষ্ট ব্রিদিং এক্সারসাজের ফলে আমাদের মুখের পেশিগুলোও মজবুত হয়। অক্সিজেন সরবরাহ ভাল হয়। ফলে শরীরের পাশাপাশি মন ও ভাল থাকে। স্ট্রেস মুক্ত শরীর ভাল ত্বকের কারণ।

3.যোগাসনের ফলে রক্ত সঞ্চালনা ভাল হয়। রক্ত সঞ্চালনা ভাল হলে ত্বক ভাল থাকে। এর ফলে শরীরের টক্সিন বেরিয়ে যায়, যা শরীর ও ত্বকের ক্ষেত্রে ভীষণ উপকারী।

4.স্কিন টোন করে, অক্সিজেন সরবরাহ বৃদ্ধি করে। ফলে ত্বকের সমস্যা দূর হয়ে ত্বক উজ্জ্বল হয়।

5.স্ক্যাল্প এবং চুলের ফলিকলে রক্ত সঞ্চালনায় সাহায্য করে। কোষে পুষ্টি সরবরাহ করে ফলে চুলের বৃদ্ধি হয় এবং স্ক্যাল্প স্বাস্থ্যকর থাকে।

শারীরিক কসরতের পাশাপাশি পুষ্টিকর খাদ্যগ্রহণ শরীর ও ত্বকের বিভিন্ন ক্ষতির হাত থেকে আমাদের রক্ষা করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ বিভিন্ন ফল ও শাকসবজি আমাদের শরীর ও ত্বক সুরক্ষিত রাখে। নিয়মিত যোগাসনের পাশাপাশি পুষ্টিকর খাদ্যগ্রহণ করুন।

1.কমলালেবু: কমলালেবু আমাদের ত্বকের জ্বেল্লা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। কমলালেবুর খোসায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন C থাকে। খোসায় অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল এবং অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল উপাদান থাকে। তাই নিয়মিত ফেস প্যাক হিসাবে ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া সম্ভব।

2.কুমড়ো: কুমড়ো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এবং ভিটামিন A, C এবং মিনারেল সমৃদ্ধ। কুমড়োয় জিঙ্ক থাকে, যা কোষের গঠনে সহায়তা করে। কুমড়ো ত্বকের অতিরিক্ত তৈলাক্তভাব দূর করে। কোষের বিভিন্ন ছিদ্র দূর করে।

3.টম্যাটো: টম্যাটোতে ভিটামিন A, K, B1, B3, B5, B6, B7 এবং ভিটামিন C ও মিনারেল থাকে। এছাড়াও টম্যাটোতে প্রচুর লাইসোপিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা ত্বকের যৌবন ধরে রাখতে সাহায্য করে। আপনি উপকার পেতে টম্যাটোর খোসা বা রস মাখতে পারেন।

4.স্ট্রবেরি: আলফা- হাইড্রক্সিল অ্যাসিড সমৃদ্ধ স্ট্রবেরি মৃত কোষ দূর করে নতুন কোষ সৃষ্টিতে সাহায্য করে। এছাড়াও ভিটামিন C এর উপস্থিতির জন্য স্ট্রবেরি কলিজেন উৎপাদনে সাহায্য করে, ফাইনলাইন এবং বলিরেখা দূর করে। স্ট্রবেরিতে ওমেগা -3 ফ্যাটি অ্যাসিড উপস্থিত যা ত্বকের রং উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে।








Leave a reply