নতুন সংসারে খরচ কমিয়ে সঞ্চয় করবেন যেভাবে

|

প্রতিটি মানুষকেই জীবনের কোনো না কোনো সময়ে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হতে হয়। সেই ধারাবাহিকতায় জীবনের নতুন অধ্যায় শুরু করেছেন অনেকেই। তবে নতুন সংসার শুরু করলেই হবে না, মাথায় রাখতে হবে ভবিষ্যতের কথাও। অর্থাৎ নতুন বিয়ে বলে যেমন তেমন ভাবে খরচ করাটা মোটেও বুদ্ধিমানের কাজ নয়। ভবিষ্যতের কথা ভেবে এখন থেকেই সঞ্চয় করা খুব জরুরি।
সেক্ষেত্রে কেবল স্বামীই নয়, স্ত্রীকেও ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে যতটা সম্ভব খরচ কমিয়ে সঞ্চয় করার চেষ্টা করতে হবে। চলুন জেনে নেয়া যাক এমন কিছু উপায়, যা আপনাকে নতুন সংসারের খরচ কমিয়ে সঞ্চয় করতে সহায়তা করবে-

যেভাবে খরচ কমাবেন

১।যতটুকু প্রয়োজন‌ ঠিক ততটুকু খরচ করুন। অপ্রয়োজনীয় কিছু কিনে অপচয় করা থেকে বিরত থাকুন। কারণ যেকোনো সময়ই বিপদ আসতে পারে।

২। ঘরোয়া খাবারে অভ্যস্ত হয়ে উঠুন। এতে স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। সেই সঙ্গে খরচও কমবে।

৩। বাড়ি থেকে অফিসে খাওয়ার নেয়ার চেষ্টা করুন। এতে বাইরে খাওয়ার খরচ বাঁচবে। খাবারটাও নিরাপদ হবে।

৪। যতটা প্রয়োজন ঠিক ততটাই নতুন পোশাক কিনুন। পারলে বর্তমানে যা আছে তা দিয়েই চলার চেষ্টা করুন। এতে খরচ কমবে।

৫। নতুন বিয়ে, এই ভেবে ঘন ঘন পার্লারে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন। ঘরোোভাবে যতটা সম্ভব সৌন্দর্যচর্চা করুন।

৬। উৎসবে উপহারের বাজেট কাটছাট করুন। লোক দেখানো উপহার দেয়া থেকে বিরত থাকুন।

৭। আপাতত কোথাও বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা স্থগিত রাখুন। গেলেও খুব দূরে কোথাও গিয়ে টাকা খরচের দরকার নেই। কম খরচে কাছে কোথাও ঘুরে আসুন। সম্ভব হলে ভবিষ্যতের জন্য সেই টাকা জমানোর চেষ্টা করুন।

টাকা জমাবেন যেভাবে

১। আয়ের অন্তত ৫ থেকে ১০ শতাংশ টাকা জমাতে চেষ্টা করুন। শেয়ার মার্কেট এখনো স্থিতিশীল নয়। এ কারণে অভিজ্ঞতা না থাকলে এ সময় শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ না করাই ভালো। বেতন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেটা যাতে সঞ্চয়ের জন্য জমা করা যায় সে ব্যবস্থা করুন।

২। সপ্তাহ শেষে বাজেটের সঙ্গে খরচের হিসাব মেলান। কোথায় কম-বেশি হয়েছে সেটা লক্ষ্য রাখুন। বেশি খরচ করে ফেললে সেটা কীভাবে এড়ানো যায় সেই চেষ্টা করুন।

৩। বেতন পাওয়ার পর বাড়ি ভাড়া, ইলেকট্রিক বিল ইত্যাদি দেয়ার পর যে টাকা থাকবে তার ১০ শতাংশ সেভিংস অ্যাকাউন্টে জমা রাখুন। বছরের শেষে প্রিমিয়াম দিতে বা কোনো দরকারে কাজে লাগবে।

বাজেট মেনে চলবেন যেভাবে

৪। সপ্তাহে একদিন বা দু’দিন বাজারে যান। তালিকা মিলিয়ে হিসেব করে জিনিস কিনুন। অযথা যাতে কোনো খরচ না করেন সে বিষয়ে সতর্ক থাকুন।

৫। বিজ্ঞাপন দেখে বা সস্তায় কিছু কেনা থেকে বিরত থাকুন।

৬। নিজেকে সামলাতে না পারলে অনলাইন শপিং সাইটে ঢোকা বন্ধ করে দিন।

৭। যে ঘরে থাকবেন না, সে ঘরের আলো, ফ্যান বন্ধ করে রাখুন। সারাদিন কম্পিউটার অন করে রাখবেন না।

৮। দরকার না হলে সিএনজি, উবারে চড়বেন না। সকালে-বিকেলে তেমন তাড়া না থাকলে আশপাশের কাজগুলো পায়ে হেঁটে সেরে ফেলুন, সাইকেল থাকলে আরও ভালো।








Leave a reply