চুল কাটাতে যা জানা দরকার

|

বিভিন্ন উৎসব-আয়োজনে অনেকেই নয়া হেয়ারকাট নেন। এছাড়া মাঝেমধ্যে নিজেকে ভিন্ন রূপে সাজাতেও পার্লারে গিয়ে চুলে কাঁচি চালান। চুল কাটানোর পর বন্ধুদের বারবার জিজ্ঞেস করতে হয় হেয়ারকাটটা ঠিক মানিয়েছে কি না! মন খুঁতখুঁত করে৷ চুলের সব কাটেই সবাইকে সুন্দর দেখাবে এটা ভাবার কারণ নেই। মুখের গড়ন, চোখ, চুলের ধরণ- এসব অনেক কিছুর ওপরই নির্ভর করে বিষয়টি। তাই নয়া হেয়ারকাটের আগে অবশ্যই বিষয়গুলো জেনে নেওয়া উচিত।

নিজের মুখের আকৃতি চিনুন

সঠিক স্টাইলে চুল কাটাতে নিজের মুখের আকৃতি সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিন। মুখের আকৃতি মানে আপনার চোয়ালের গঠন কেমন। এক এক মুখে এক এক হেয়ারকাট মানায়। অন্যের মুখে কোন হেয়ারকাট ভালো লাগছে বলে আপনিও গিয়ে সেই একই হেয়ারকাট কাটিয়ে নিলেন৷ অথচ সেই কাট একেবারেই মানালো না আপনাকে৷ কারণ আপনার মুখের গঠন আলাদা৷

আপনাকে কী মানাবে সেটা জানুন

ডিম্বাকৃতি মুখ হচ্ছে সব থেকে বেশি আকর্ষণীয়। যদি হেয়ারকাট আপনার মুখকে ওভাল শেপ করে তোলে, তখনই আপনাকে দেখতে সুন্দর লাগবে। নিজের মুখের আকার কাগজে একে নিন বা নিজের ছবির ওপরে পছন্দের হেয়ার স্টাইল এঁকে দেখুন। যদি দেখতে পান যে মুখ গোল দেখাচ্ছে, বুঝবেন যে হেয়ার কাটটি আপনাকে মানিয়ে যাবে।

নিজের চুলকে জানুন

নিজের চুলের গোছ, টেক্সচার ইত্যাদিকে জানুন। আপনি সোজা চুলে যে স্টাইল করতে পারবেন, কোঁকড়া চুলে আপনাকে সেটা মানাবে না। রুক্ষ্ম আর মোলায়েম চুলের স্টাইলও এক হবে না কখনোই। তাই হেয়ার এক্সপার্টের সঙ্গে কথা বলেই স্টাইল বাছুন।

প্রত্যাশা রাখুন বাস্তবসম্মত
পর্দায় দেখে একজন স্টারের মতো হেয়ারস্টাইল করলেন বলেই আপনাকে দেখতে তাঁর মত মনে হবে এমনটা ভাবতে যাবেন না। অন্ধ অনুকরণ না করে নিজের সঙ্গে মানানসই হেয়ার কাট বেছে নিন।

নিজের লাইফ স্টাইল মাথায় রাখুন

অনেক হেয়ার কাটই আছে, যেগুলিকে নিয়মিত যত্ন করতে হয়। তা না করলে দেখতে সুন্দর লাগে না। এমন অবস্থায় আগে ভেবে দেখুন আপনার কাছে কতটুকু সময় আছে প্রতিদিন আপনার চুলের পেছনে ব্যয় করার মত। যদি তা থাকে তাহলেই সেই কাট কাটুন৷

কতটা চুল কাটতে চান সেটা নিশ্চিত হয়ে নিন

অনেকেই চুল কেটে ফেলার পর মন খারাপ করেন। কারণ, চুল বাড়তে সময় নেয়! তাই আগেই মনস্থির করে নিন যে কতটা চুল আপনি কাটতে চান এবং কী পরিবর্তন চান চুলে। সেই মতো পরিষ্কার করে কথা বলুন হেয়ার এক্সপার্টের সঙ্গে৷








Leave a reply