চুলের রং দীর্ঘস্থায়ী করতে যা করবেন

|

সুন্দর দেখাতে অনেকেই চুলে রং করেন। একটু ডিফারেন্ট লুকের জন্য অনেকে চুলে কালার করে, আবার অনেকে সাদা চুল ঢাকতে হেয়ার কালার ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু হেয়ার কালার করার দুই-তিন সপ্তাহের মধ্যেই চুল থেকে রঙ উঠে যেতে শুরু করে, যার কারণে চুল নিস্তেজ দেখায়।
আবারও যেতে হয় পার্লারে। তবে পার্লারে আর যেতে হবে না। ঘরোয়া উপায়ে চুলের রং দীর্ঘস্থায়ী করতে পারবেন। জেনে রাখুন উপায়গুলো-

এসএলএস শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না
এসএলএস শ্যাম্পু থেকেই চুলের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়। এসএলএস শ্যাম্পুতে সোডিয়াম লরাইল সালফেট অনেক বেশি থাকে। আর এই সালফেট চুলের সবচেয়ে বড়ো শত্রু। এর কারণেই শ্যাম্পু লাগালে চুলে প্রচুর পরিমাণে ফেনা হয়। সালফেট, চুল থেকে প্রাকৃতিক তেলের আস্তরণ শুষে নিয়ে চুল রুক্ষ করে তোলে। পাশাপাশি কালার করা চুলও দ্রুত ফিকে হয়ে যায়। তাই সালফেট-ফ্রি শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। এতে করে আপনার চুলের কালার দীর্ঘস্থায়ী হবে।

হেয়ার ড্রায়ারে চুল শুকাবেন না
হেয়ার কালার করার পরে চুলে হেয়ার ড্রায়ার, স্ট্রেইটনার ব্যবহার করবেন না। কারণ চুলে তাপ দেয়ার ফলে চুল দুর্বল হয়ে যায় এবং চুলের রঙও ফিকে হয়ে যায়। তাই এটি এড়িয়ে চলুন। চুল ধুয়ে ফেলার পর, প্রাকৃতিকভাবে বা ফ্যানের বাতাসে চুল শুকিয়ে নিন।

বাইরে গেলে চুল ঢেকে বের হবেন
হেয়ার কালার করলে সাধারণত সবাই চুল খুলে বেরোতেই পছন্দ করেন। কিন্তু চুল খুলে রাখলে চুলের ক্ষতি হয় বেশি। বিশেষ করে রোদে চুল নিস্তেজ ও প্রাণহীন হয়ে যায়। তাই চুলে কালার করার পর রোদে যাওয়া এড়িয়ে চলুন। তবে যদি একান্তই বাইরে বেরোতে হয়। তাহলে চুল ভালো করে ঢেকে তবেই বাইরে যান।








Leave a reply