হোমিওপ্যাথিক ওষুধ খাওয়ার আগে এই বিষয়গুলি মাথায় রাখুন

|

হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলি অনেকগুলি জটিল জটিল রোগের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এই মিষ্টি বড়িগুলি খাওয়ার ফলে মানুষ চিরকালের জন্য অনেক বিপজ্জনক রোগ থেকে মুক্তি পান। সাম্প্রতিক একটি প্রতিবেদন অনুসারে জানা যায় যে, কিডনি এবং থাইরয়েড রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য হোমিওপ্যাথিক ওষুধই সেরা উপায়। অনেক ভাল চিকিৎসকরা ও ভাবছেন যে, কেন তাদের ওষুধটি রোগীকে প্রভাবিত করছে না।

আমরা খালি পেতে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খায়। কিছু খাওয়ার মাত্র ৫ মিনিটের পরে ওষুধ খান। মনে রাখবেন আপনি যদি এলাচ, রসুন, পেঁয়াজ বা গোলমরিচ জাতীয় কিছু খান তবে ৩০ মিনিটের পরে ওষুধ সেবন করেন। এই সময় কফি পান করবেন না।

গিলে ও চিবিয়ে ফেলার পরিবর্তে এটি কেবল চুষে খাওয়া হয় কারণ ওষুধের প্রভাব জিহ্বার মাধ্যমে প্রবাহিত হয়। ওষুধ খাওয়ার পরে ৫-১০ মিনিট পর্যন্ত কিছু খাবেন না। হোমিওপ্যাথির ওষুধের প্রভাব রোগীর রোগ তীব্র বা দীর্ঘস্থায়ী কিনা তার উপর নির্ভর করে। এটি তীব্র রোগগুলির ক্ষেত্রে ৫-৩০ মিনিটের মধ্যে এবং দীর্ঘস্থায়ী রোগে ৫-৭ মিনিটের মধ্যে প্রদর্শিত হয়। অনেক সময় ২টি বড়ির পরিবর্তে ৪টি বড়িও খাওয়া যায় কারণ কম-বেশি ওষুধ সেবন করা কোনও বিষয় নয়।

হোমিওপ্যাথির ওষুধ কেন মিষ্টি:
এ সম্পর্কে ডঃ সরপাল ব্যাখ্যা করেছেন যে, হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলি অ্যালকোহল দিয়ে তৈরি করা হয় যার কারণে বেশ ঝাঁঝালো হয় যার কারণে মুখে ফোস্কা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সাদা মিষ্টি ট্যাবলেটও দেওয়া হয়। ওষুধে উপস্থিত অ্যালকোহলগুলি বাষ্প হয়ে যাওয়ার সাথে সাথে এর প্রভাবটি হ্রাস পায়।

ঔষধের শক্তি:
প্রায়ই চ্চিকিৎসকরা হোমিওপ্যাথির ওষুধ দেওয়ার সময় সামর্থ্যের কথা বলেন। সামর্থ্য অনুযায়ী ওষুধ কার্যকর ভূমিকা পালন করে। অতিরিক্ত সামর্থ্য অস্বস্তি বাড়াতে এবং চিকিৎসার সময়কে কমিয়ে দিতে পারে। এটি রোগের তীব্রতা, সময়কাল, উপসর্গ, বয়স এবং প্রকৃতির ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। হোমিওপ্যাথির ওষুধে সামর্থ্যের অর্থ ‘ওষুধের শক্তি’। এটি ওষুধের মানকে প্রভাবিত করে।

নিম্ন শক্তি এবং উচ্চতর ক্ষমতা দুই প্রকারের রয়েছে। সর্দি-কাশির মতো তীব্র রোগে কম শক্তির ঔষধ দেওয়া হয়। এগুলি ছাড়াও হাঁপানি, একজিমার মতো অ্যালার্জিজনিত রোগের ক্ষেত্রে এমনকি রোগের লক্ষণগুলি পরিষ্কার নয় এসব ক্ষেত্রেও নিম্ন শক্তির ঔষধ দেওয়া হয়। রোগের পরিবর্তনের জন্য উচ্চ শক্তিটিও বেছে নেওয়া হয়। নিম্ন শক্তিটি সপ্তাহে ৪-৬ বার দেওয়া হয় এবং সপ্তাহে একবার বা ১৫ দিনের মধ্যে উচ্চতর শক্তি দেওয়া হয়।








Leave a reply