হৃদরোগ দূর করতে চিনাবাদাম উপকারী

|

যারা প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন এবং ফ্যাটগুলির কারণে শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে চান তাদের জন্য চিনাবাদাম খুব উপকারী। বাদাম আমাদের প্রিয় খাবারগুলিতে অন্তর্ভুক্ত। এগুলি শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুণে পূর্ণ, এটি নিয়মিত খেলে আমাদের বিভিন্ন ধরণের রোগ এড়াতে সহায়তা করে। চিনাবাদামে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন এবং ফ্যাট থাকে। সুতরাং, যারা শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে চান, তাদের খাওয়াই খুব উপকারী। একটি গবেষণা এটি নিশ্চিত করেছে যে, চিনাবাদাম সেবন করলে সহজেই হার্টের ধমনী সমস্যা, হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোক থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

রক্তের লিপিড এবং ট্রাইগ্লিসারাইড নামক ফ্যাটগুলি খাবার পরে আমাদের রক্ত প্রবাহে আসে। এগুলি রক্তনালীতে বাধা সৃষ্টি করে হৃদরোগের কারণ হয়। গবেষণার অনুসন্ধানে প্রমাণিত হয়েছে যে, ব্যক্তিরা উচ্চ চর্বিযুক্ত খাবারের সাথে কমপক্ষে তিন আউন্স চিনাবাদাম গ্রহণ করেন তাদের রক্ত প্রবাহে লিপিডের পরিমাণ দ্রুত বৃদ্ধি পায়। পাশাপাশি উপসংহারেও দেখা গেছে যে, খাওয়ার পরে চিনাবাদাম খাওয়ার ফলে রক্ত প্রবাহে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা ৩২ শতাংশ কমে যায়।

গবেষণার সাথে জড়িত এক গবেষক বলেছেন যে, আমরা যখনই কিছু খাই তখন আমাদের রক্তনালীগুলি খাওয়ার পরে কিছুটা শক্ত হয়ে যায় তবে আমরা যখন খাবারের সাথে চিনাবাদাম সেবন করি তখন আমাদের সেই শক্ততা আটকাতে সহায়তা করে। এই কঠোরতা রক্তনালীগুলির স্থিতিস্থাপকতা মারাত্মকভাবে হ্রাস করে। একই সাথে এটি তাদের মধ্যে নাইট্রিক অক্সাইডের পরিমাণও সীমিত করে যা রক্তনালীগুলিকে নমনীয় হতে সহায়তা করে।

গবেষকরা বলছেন যে খাওয়ার পরে ট্রাইগ্লিসারাইড বাড়ার কারণে রক্তনালীগুলির সঞ্চালন কমতে শুরু করে, যার কারণে রক্তের প্রবাহ পেতে হৃৎপিণ্ডকে অতিরিক্ত কঠোর পরিশ্রম করতে হয়। এ কারণে হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে, খাবার খাওয়ার পরে চিনাবাদাম খাওয়া ট্রাইগ্লিসারাইডগুলির বৃদ্ধি রোধ করে এবং আমাদের হৃদয়কে সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।








Leave a reply