হাড়ের ক্যান্সারের পূর্ববর্তী লক্ষণগুলি এবং এর প্রতিরোধ সম্পর্কে জেনে নিন-

|

হাড়ের ক্যান্সার এমন একটি ক্যান্সার যা প্রাথমিক পর্যায়ে নির্ণয় করা খুব কঠিন। কারণ এর কোনও নির্দিষ্ট লক্ষণ নেই। বেশিরভাগ লোক এই রোগ সম্পর্কে অসচেতন।
এর লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে হাড় ফোলা এবং বিভিন্ন সংক্রমণ। মানুষেরা প্রায়ই এই রোগটিকে সঠিকভাবে চিনতে পারে না। যার ফলে একসময়ে এই রোগটি মারাত্মক আকার ধারণ করে। আক্রান্ত স্থানে হঠাৎ ব্যথা হওয়া, হাড়ের মধ্যে ফোলাভাব এবং হালকা আঘাত থেকে ফ্র্যাকচারের মতো সমস্যাগুলি দেখে লোকেরা বুঝতে পারে না যে, তাদের কী ধরনের সমস্যা বা রোগ রয়েছে। ধীরে ধীরে এই সমস্যাগুলি জীবনের জন্য একটি বড় হুমকি হয়ে উঠে।

হাড়ের ক্যান্সার নির্ণয়ে অগ্রগতির সাথে সাথে রোগী এবং চিকিৎসকদের আজ অনেক সুবিধা রয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে এই রোগ নির্ণয় করা হওয়ায় ডাক্তারদের পক্ষে উপযুক্ত চিকিৎসা করা আরও সহজ।
স্যাকেট, নয়াদিল্লির ম্যাক্স সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের মাস্কুলোস্কেলিটাল সার্জিকাল অনকোলজি বিভাগের প্রধান ও প্রধান উপদেষ্টা ড: অক্ষয় তিওয়ারি বলেছেন, “বায়োপসি হাড়ের ক্যান্সারের সঠিক নির্ণয়ের জন্য ব্যবহৃত একটি স্বল্পতম আক্রমণাত্মক প্রক্রিয়া। এই প্রক্রিয়াতে, আক্রান্ত অঙ্গটির টিস্যুগুলিকে নমুনা হিসাবে নেওয়া হয়। যাতে রোগ নির্ণয়টি সঠিকভাবে করা যায়।

বায়োপসি সাধারণত রোগীর ভিত্তিতে বাছাই করা হয় তবে খুব কমই এমন ঘটনা ঘটে যেখানে ইনসেশনাল বায়োপসি বাধ্যতামূলক হয়ে যায়। বায়োপসি পদ্ধতির সাথে প্রাথমিক রোগ নির্ণয় রোগীর জীবন ৮০% পর্যন্ত উন্নত করে। এই প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ নিরাপদ। প্রাথমিক রোগ নির্ণয় এবং সঠিক চিকিৎসা সাহায্যে ৯০% রোগী তাদের আক্রান্ত অঙ্গগুলি শরীর থেকে আলাদা না করে সফলভাবে চিকিৎসা করেছেন।

যদিও প্রাথমিক রোগ নির্ণয় রোগীদের জীবন ৭০% পর্যন্ত বাঁচাতে সহায়তা করেছে। হাড়ের ক্যান্সারের চিকিৎসা রোগের ধরণের উপর নির্ভর করে।
চিকিৎসক অক্ষয় তিওয়ারি আরও ব্যাখ্যা করেছেন, হাড়ের ক্যান্সারের চিকিৎসা রোগের ধরনের উপর নির্ভর করে। মাল্টিডিসিপ্লিনারি টিম প্রতিটি রোগীকে সঠিকভাবে পরীক্ষা করে পরবর্তী পদ্ধতিটি অবলম্বন করা হয়। প্রথম চিকিৎসার জন্য একটি পরিকল্পনা প্রস্তুত করা হয়। তারপরে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চিকিৎসা শুরু করা হয়। এটি একটি শল্য চিকিৎসা পদ্ধতি যেখানে আক্রান্ত অঙ্গটি না কেটে টিউমারটি পুরোপুরি সরিয়ে ফেলা হয়। আক্রান্ত অঙ্গটি শরীর থেকে পৃথক করা মাত্র ১ শতাংশ রোগীর প্রয়োজন।








Leave a reply