হজমকে শক্তিশালী এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে এই সহজ উপায়টি অনুসরণ করুন

|

অন্ত্রের প্রাথমিক কাজ হজম, পুষ্টির শোষণ এবং শরীর থেকে বর্জ্য অপসারণ। এই কাজে যদি কোনও ধরণের ঝামেলা হয় তবে পেটের সমস্যা শুরু হয় এবং ব্যক্তি কোষ্ঠকাঠিন্য এবং বদহজমের মতো সমস্যার শিকার হয়।


রাতে বেশি খাবার খাওয়ার পরের দিন সকালে পুরো শস্য আপনার পেটের উন্নতি করতে ভাল বিকল্প হিসাবে প্রমাণিত হতে পারে। এটি ফাইবার সমৃদ্ধ এবং এটি আপনার পেটের ক্ষুধা প্রশমিত করতে সহায়তা করে। এতে প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর ফ্যাট যুক্ত করতে আপনি বাদাম মাখনের সাথে পুরো শস্যের রুটি তৈরি করতে পারেন।


আপেলগুলিতে পেকটিন নামক একটি ফাইবার থাকে যা আমাদের অন্ত্রের প্রোবায়োটিক হিসাবে কাজ করে। এটি অন্ত্রগুলির মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ শর্ট-চেইন ফ্যাটি অ্যাসিডগুলির মাত্রা বৃদ্ধি করে, যা উপকারী ব্যাকটিরিয়ায় খাদ্য সরবরাহ করে।


আনারসে ব্র্যামলাইন নামে একটি বিশেষ এনজাইম রয়েছে, যা প্রোটিন হজমে খুব সহায়ক। যাইহোক, পেটের পক্ষে প্রোটিন হজম করা সহজ নয়, তাই উচ্চ প্রোটিনযুক্ত ডায়েটের পরে যদি আনারস খান তবে প্রোটিনের আরও সুবিধা পাবেন ।


কলা পটাসিয়ামের সেরা উৎস হিসাবে বিবেচিত হয়। কলাতে অ্যামাইলেজ এবং মাল্টেসের মতো অনেক এনজাইম রয়েছে যা দেহের জটিল কার্বগুলি ভেঙে ফেলতে সহায়তা করে। তাই খাওয়ার১ ঘন্টা পরে যদি আপনি ১-২ টি কলা খান তবে আপনার খাবারটি হজম হতে সাহায্য করবে।


পেঁপেতে রয়েছে ‘পেপাইন’ নামক একটি বিশেষ এনজাইম যা হজমতন্ত্রকে প্রোটিনগুলি ভেঙে ফেলতে সহায়তা করে। এ ছাড়া পেঁপেতে অনেক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা আপনাকে অনেক মারাত্মক রোগ থেকে রক্ষা করে। তাই পেঁপে পেটের সমস্যায়ও আপনাকে অনেক উপকার দেয়।


আদা হজমের জন্য খুব উপকারী একটি খাদ্য হিসাবেও বিবেচিত হয়। আদা অবশ্যই ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। আদাতে জিঙ্গিবাইন নামে একটি বিশেষ এনজাইম থাকে যা প্রোটিন হজম করে। এছাড়াও আদাতে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে।


মধুতে ডাইস্টেসেস, ইনভার্টেস এবং প্রোটেস নামক এনজাইম রয়েছে যা হজম সিস্টেমকে স্টার্চ, চিনি এবং প্রোটিন ভেঙে ফেলতে সহায়তা করে। খাবারে মধুর ব্যবহার উপকারী হিসাবেও বিবেচিত হয় কারণ মধুতে অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে।








Leave a reply