স্মৃতিশক্তি দ্রুত বৃদ্ধি করার ৫টি কার্যকরী টিপস

|

আজকের জীবনযাত্রা এবং দ্য মিল-অফ দ্য মিল-এর জীবনা প্রায়শই অ্যামনেসিয়া বাড়ে, যদিও এটি কোনও বিশেষ ধরণের রোগ না হলেও কেবল একটি সাধারণ ঘটনা। তবে ভাল স্মৃতি না থাকা খুব হতাশার বিষয় হতে পারে। যাইহোক, সমস্যাগুলি ভুলে যাওয়ার অনেকগুলি সাধারণ কারণ থাকতে পারে। অনেক গবেষণা অনুসারে, আপনার দুর্বল জীবনযাত্রা এবং ডায়েট আপনার স্মরণে রাখার ক্ষমতা হ্রাস বা হ্রাস করতে প্রভাব ফেলতে পারে, তাই আজ আমরা আপনাকে স্মৃতিচারণের প্রাকৃতিক উপায়গুলি সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি যার সাহায্যে আপনি স্মৃতি গতি বাড়িয়ে দিতে পারে।

১.ভাল এবং পর্যাপ্ত ঘুম পান

কঠোর জীবন এবং কঠোর পরিশ্রমের পরে আপনার অনেক বিশ্রাম এবং ঘুম দরকার। আপনি যখন পর্যাপ্ত ঘুম পান, আপনি মানসিক এবং শারীরিকভাবে স্বাস্থ্যকর এবং সক্রিয় বোধ করেন। এগুলি ছাড়াও, যখন আপনার ঘুম সম্পূর্ণ হয় না, এটি আপনার স্বাস্থ্যের উপর খুব খারাপ প্রভাব ফেলে, যার কারণে আপনি দুর্বল স্মৃতির মতো সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, সুস্থ থাকার জন্য প্রাপ্তবয়স্কদের অবশ্যই প্রতিদিন ৭ থেকে ৯ ঘন্টা ঘুম নিতে হবে।

২.ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন

আপনার ওজন আপনার স্মৃতিশক্তিকেও প্রভাবিত করে। আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা আপনার মানসিক এবং শারীরিক স্বাস্থ্য বজায় রাখার একটি ভাল উপায়। একটি গবেষণা অনুসারে, স্থূলকার হওয়ার কারণে আপনার মস্তিস্কে স্মৃতিশক্তির সাথে জিন যুক্ত অনেক বড় পরিবর্তন আসতে পারে যা আমাদের স্মৃতিশক্তিকে প্রভাবিত করে সুতরাং, আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা প্রয়োজন।

৩.পরিশোধিত কার্বস গ্রহণ কমিয়ে দিন

আপনি যদি প্রচুর শর্করা জাতীয় খাবার যেমন কেক, কুকিজ, সাদা রুটি এবং সাদা ভাত ইত্যাদি গ্রহণ করেন তবে এটি আপনার স্মৃতিতে খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। এই খাবারগুলিতে উচ্চ পরিমাণে গ্লাইসেমিক পাওয়া যায়, যা আপনার দেহগুলিকে দ্রুত এবং সহজে এই কার্বোহাইড্রেট হজম করে তোলে যা রক্তে শর্করার মাত্রায় দ্রুত বৃদ্ধি ঘটায়।

৪.অ্যালকোহল সেবন করবেন না

প্রায়শই, লোকেরা ভুলে যায় যে অ্যালকোহল সেবন করার সময়, এটি কতটা পান করা তাদের স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলতে পারে। এর বাইরে অতিরিক্ত খাওয়া আপনার মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ হতে পারে, যার কারণে আপনি আপনার স্মৃতিশক্তি হারাতে  পারেন। অনেক গবেষণা অনুসারে অ্যালকোহল মস্তিষ্ককে নেতিবাচক করে তোলে।অতএব এটি খাওয়া কম করুন যাতে এটি আপনার মনে কোনও খারাপ প্রভাব ফেলতে না পারে।

৫.প্রতিদিন মেডিটেশন করুন

আপনি যখন প্রতিদিন ধ্যান করেন তখন এটির জন্য আপনি  স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। এর সাথে এটি আপনার স্মৃতিশক্তিও বাড়ায়। এটি একটি খুব আরামদায়ক এবং প্রশংসনীয় উপায়। মেডিটেশনটি আপনার মস্তিষ্কে ধূসর পদার্থকে বাড়িয়ে তোলে বলা হয় যে এটি আপনার স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য কাজ করে।








Leave a reply