সৌন্দর্যের সাথে সম্পর্কিত এই গোপন বিষয়গুলি জেনে রাখুন

|

অনেক সময় আমরা সঠিক জ্ঞানের অভাবে ত্বকের সঠিকভাবে যত্ন নিতে সক্ষম হই না, তবে ত্বকের জন্য প্রথমে সঠিক এবং ভুল কী তা আগে জেনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

প্রতিটি মৌওসুমের নিজস্ব সমস্যা রয়েছে। যখন শীতকালে কয়েকবার হয়। এক্ষেত্রে ঠোঁট এবং গোড়ালি ফাটে যাওয়া, চুলে খুশকি এবং শুষ্ক ত্বকের মতো সমস্যা এখন থেকেই শুরু হয়। অতএব, এই সময়ে ত্বকের বিশেষ যত্ন প্রয়োজন। এই সময়ে নরম এবং জ্বলজ্বলে ত্বকের জন্য প্রয়োজনীয় কী এবং কী নয়

ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেললে ত্বক শুকায় নাঃ

আপনি বেশি আপনার সাবান বা ফেসওয়াশ দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করেন তত বেশি শুষ্ক হয়ে যায়। পরিষ্কার করার পর থেকেই ত্বকের প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হ্রাস পায়। হ্যাঁ, এটির পরিবর্তে পেস্ট ব্যবহার করুন। এর জন্য দু’চামচ দুধের গুঁড়ো এবং দুই চামচ ব্রান এবং কিছুটা জল মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। সাবানের পরিবর্তে এটি ব্যবহার করুন। ত্বক শুষ্ক হবে না। সরিষা, বাদাম বা জলপাইয়ের তেল দিয়ে শরীরের ম্যাসাজ করা এবং হালকা গরম জল দিয়ে গোসল করার পরে শরীরের শুধু শুষ্কতা দূর করে না ব্যথা দূর করে।

কম ক্রিম ব্যবহার ত্বককে শুষ্ক করে তোলেঃ

বেশি পরিমাণে ক্রিম ব্যবহার করলে ত্বকের শুষ্কতা প্রভাবিত হয় না। আসলে, ত্বকের মধ্যে রক্ত সঞ্চালন ধীর হয়ে যায়। এটি শরীরের তাপমাত্রা হ্রাস করে এবং শরীরের সিউনের উৎপাদন হ্রাস করে। সোয়াম আমাদের তেল গ্রন্থি থেকে মুক্তি পাওয়া তৈলাক্ত পদার্থ যা আমাদের ত্বককে নরম ও চকচকে করতে সহায়তা করে। শীতে শরীরের তাপমাত্রা কম থাকায় সিউন অন্ধকার হয়ে যায় এবং ত্বকের বাইরের স্তরে আসতে অক্ষম হয়, যা ত্বককে শুষ্ক করে তোলে।

আবহাওয়ার ত্বকে সরাসরি প্রভাব ফেলেঃ

হ্যাঁ, এটা সত্য যে শীতের সর্বাধিক প্রভাব ত্বকের প্রথম স্তর, অর্থাৎ এপিডার্মিসে পড়ে। শুষ্কতার ফলে এপিডার্মিস সংকোচিত হয়, তাই ত্বকের কোষগুলি ভেঙে যেতে শুরু করে। ত্বকে এই পরিবর্তনটি কয়েক মাস পরে ত্বকে প্রদর্শিত শুরু হয় যা সূক্ষ্ম রেখায় পরিণত হয়।








Leave a reply