সকালের নাস্তা ডায়াবেটিস থেকে অনেক গুরুতর রোগ প্রতিরোধ করতে পারে

|

যদি সকালে একটি ভাল খাবার দিয়ে শুরু হয়, তবে পুরো দিনটি ভাল যায়। এটি আপনার মেজাজ ভালো রাখে এবং পাশাপাশি কাজ করার শক্তি দেয়। একটি ভাল খাবার অনেকগুলি স্বাস্থ্য উপকার রয়েছে। এর বাইরেও এমন অনেক অভ্যাস রয়েছে যা আমাদের আমাদের প্রতিদিনের জীবনযাত্রায় নিয়ে আসা উচিত।

১. সকালে খাবার এড়িয়ে যাবেন না- সকালে খাবার খেলে শরীরের বিপাক থেকে যায়। যাঁরা সকালের নাস্তা করেন না তাঁদের রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

২. ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কম থাকে- সকালে নিয়মিত উঠার প্রায় এক ঘন্টা পর খাবার গ্রহণ করা উচিত। এটি করে আপনার ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ হবে।

৩. সহজ খাবার তৈরি করুন- সহজলভ্য খাবার খান। দই, ফল, বাদাম, ডিম সবই সহজেই এই জিনিসগুলি পেয়ে যায় যাতে আপনি খাবার তৈরিতে অলস হবেন না।

৪. খাবার মনকে সতেজ রাখে – সকালের নাস্তা করা লোকেরা খুব তাড়াতাড়ি চাপে পড়ে না এবং একই সাথে ব্যক্তিটি মেজাজে সতেজ হয়।

৫. এটি স্থূলত্ব কমাতেও কার্যকর – এর অর্থ যদি লোকেরা সকালে নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাবার খান, তবে আপনি মেদ পাবেন না।

৬. সকালে ঘুম থেকে ওঠার সাথে জল পান করুন – ওঠার পরে, খালি পেটে হালকা জল পান করুন আপনার হজমশক্তিকে উন্নত করবে। এটি ছাড়াও এতে লেবুর রসও যোগ করতে পারেন। এটি কেবল স্বাদ বাড়িয়ে তুলবে না, তবে লেবুতে উপস্থিত ভিটামিন সি আপনার শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থও দূর করবে।

৭. জাঙ্ক ফুড – খুব সকালে প্যাকেট খাবারের মাধ্যমে নয়, স্বাস্থ্যকর খাবার দিয়ে তৈরি করা উচিত। আপনার প্রাতঃরাশে সিরিয়াল, প্রোটিন এবং কম ফ্যাটযুক্ত খাবার অন্তর্ভুক্ত করুন। আপনি সকালে দই, ভেটের রুটি, ফল, সবুজ শাকসবজি, সিদ্ধ ডিম ও ওটের মতো ডায়েট নিতে পারেন।

৮. প্রাতঃরাশে বৈচিত্র্য প্রয়োজনীয় – মানুষ, বিশেষত শিশুরা প্রতিদিন একই খাবার খেয়ে উদাস হয়ে যায়। তাই সকালের নাস্তায় বিভিন্ন ধরণের খাবারের চেষ্টা করা উচিত। এর বাইরে আপনি সেই খাবারে উপস্থিত পুষ্টিও পাবেন। এক ধরণের খাবারে আপনি সমস্ত পুষ্টি পান তা প্রয়োজনীয় নয়।








Leave a reply