শরীরের ক্লান্তি দূর করতে ভিনেগার ব্যবহার

|

ভিনেগার বা সিরকা এক ধরনের তরল পদার্থ। ১০৪৬সাল থেকে চৌ রাজবংশ চীনেরা চিকিৎসার ভূমিকাসম্পন্ন খাবারের তালিকায় স্থান করে নিয়েছিল ভিনেগার। চীনের থান রাজবংশের বিখ্যাত চিকিৎসক সুন সি মিয়াও তার ‘ছিয়েন চিন ফান’ ও ‘ ছিয়েন চিনই ফান’ নামক দুটি বইতে বিশেষ ধরনের খাবার দিয়ে রোগ নিরাময়ের কথা বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করেছেন। এর মধ্যে শরীরের ক্লান্তি দূর করতে ভিনেগার পান করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

বাঙ্গালিরা বিভিন্ন রান্নায় ভিনেগার ব্যবহার করে থাকেন। মাংস রান্না, আচার কিংবা সালাদসহ অন্যান্য অনেক খাবারেই ভিনেগার প্রায়ই ব্যবহার করা হয়। ভিনেগার বা সিরকায় ডুবিয়ে রাখা কাঁচা পেয়াজ দিয়ে মাংস খেতেও পছন্দ করেন অনেকেই।

রান্না ছাড়াও বিভিন্ন গৃহস্থালি কাজে কিংবা কোনও কিছু পরিষ্কার করতে ভিনেগার ব্যবহার করা হয়। ভিনেগারের অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতাও আছে । আমাদের দেশে সাধারণত সাদা ভিনেগার বেশি ব্যবহার করা হয়। ১ টেবিল চামচ সাদা ভিনিগারে ০.৯ গ্রাম শর্করা, ০.৯ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম এবং ০.১ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে।
ভিনিগারের যত গুণ:

ভিনেগার খেলে শরীরের রক্তপ্রবাহ সচল থাকে এবং রক্তে অক্সিজেন প্রবাহ বাড়ে। এছাড়াও ভিনেগার বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ক্লান্তি দূর করে শরীরকে রাখে সচল। নিয়মিত ভিনেগার খাওয়ার ফলে শরীর থাকে চনমনে এবং কমে যায় ক্লান্তি ভাব।

ওজন কমানোর জন্যেও এর তুলনা নেই। যারা ওজন সমস্যায় ভুগছেন তারা সালাদের সঙ্গে মেয়োনেজের বদলে ভিনেগার দিয়ে খেতে পারেন। তাহলে মেয়োনেজের অতিরিক্ত ক্যালোরি ও ফ্যাট ছাড়াই আপনি সালাদকে সুস্বাদু করতে পারবেন।
গবেষণায় প্রমাণিত, শর্করা জাতীয় খাবারের সঙ্গে ভিনেগার খেলে রক্তে শর্করার প্রবেশ কিছুটা ধীরগতিতে হয়। ভিনেগার পরিপাকের কিছু এনজাইমকে রোধ করে যেসব এনজাইমের কাজ হল শ্বেতসারকে শর্করার ক্ষুদ্র কণায় রূপান্তরিত করা। দুই টেবিল চামচ ভিনেগার আধ কাপ জলের সঙ্গে মিশিয়ে রাতে ঘুমানোর আগে খেলে সকালে রক্তে শর্করা পরিমাণ প্রায় ৪-৬ শতাংশ কমে যায়। তাই যারা ডায়াবেটিসের সমস্যায় ভুগছেন, তারা নিয়মিত ভিনেগার খাওয়ার অভ্যাস করতে পারেন।

এছাড়া অনেকেরই পরিপাকতন্ত্রে সমস্যা থাকে। কিছু খেলেই যাদের হজমের সমস্যা হয়, তাদের জন্য ভিনেগার বেশ উপকারী। ভিনেগার হজমে সাহায্য করে। নিয়মিত সালাদের সঙ্গে ভিনেগার খেলে হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। এছাড়াও ভিনেগার খাবার থেকে বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান শোষণ করতে সহায়তা করে।
অনিদ্রার রোগীদের ক্ষেত্রেও ভিনেগার বেশ উপকারি। প্রতিদিন রাতে ঘুমের আগে গরম জলের সঙ্গে ভিনেগার মিশিয়ে সেই জলে স্নান করলে শরীরের স্নায়ুর উত্তেজনা কমে, মন শিথিল হয়। ফলে সহজেই ঘুম চলে আসে এবং গভীর ঘুম হয়।








Leave a reply