রক্ত বিশুদ্ধ রাখুন ঘরোয়া উপায়ে

|

খুব ব্রণ হচ্ছে? এবং বার বার ফিরে আসছে এই সমস্যা? বা বিভিন্ন চর্মরোগে প্রায়ই নাজেহাল হয়ে যান? এর একটা কারণ হল দূষিত রক্ত। পরিশুদ্ধ রক্তের অভাবে এই ধরনের নানা সমস্যা হয়। কারণ রক্তই শরীরের প্রতিটি দিকে পৌঁছে দেয় অক্সিজেন ও যাবতীয় পুষ্টিদ্রব্য। আর এই রক্তই যদি দূষিত হয়ে যায়, তাহলে শরীরের ভেতরে তৈরি হয় নানা সমস্যা। শরীরের ভেতর যাবতীয় প্রক্রিয়াগুলি মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই রক্তকে পরিষ্কার রাখা কিন্তু খুব জরুরী। এর জন্য কিন্তু ঘনঘন ডাক্তারের কাছে যাবার দরকার পড়ে না। বাড়িতে থেকেই খুব সহজেই করা সম্ভব। দেখে নিন।

লেবুঃ শরীরে ক্ষতিকারক টক্সিন জমে থাকার ফলে রক্ত দূষিত হয়ে যায়। আর এই টক্সিন দূর করতে লেবু দারুণ সাহায্য করে। লেবুতে রয়েছে এমন কিছু উপকারী উপাদান যা, শরীর থেকে ক্ষতিকারক টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে। টক্সিন যত দূর করা যাবে, তত রক্ত পরিশুদ্ধ হবে। এর জন্য লেবুজল খান নিয়মিত।

আপেলঃ প্রতিদিন সুস্থ থাকার জন্য আপেল খুব উপকারী ফল তা আমরা অনেকেই জানি। আপেলে থাকে প্রচুর ভিটামিন, ফাইবার ও আরও অনেক পুষ্টিগুণ। যা লিভার থেকে টক্সিন বার করতে খুব উপকারি। এটা কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে, তার ফলে রক্ত পরিশুদ্ধ থাকে। এবং হার্টও ভালো থাকে।

বিটঃ বিট প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। যা রক্তাল্পতা সমস্যা ঠিক করার পাশাপাশি, রক্তকে পরিষ্কার রাখতেও বেশ সাহায্য করে। শরীরকে রোগ জীবাণু থেকে মুক্ত রাখতে সাহায্য করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। তাই রান্নায় বেশি করে বিট খান। বা সপ্তাহে দুদিন বিটের রস পান করুন।

রসুনঃ রক্ত পরিষ্কার রাখতে প্রতিদিন এক কোয়া রসুন খান। কারণ রসুনে থাকে অ্যান্টি-ক্যান্সার উপাদান যা রক্ত থেকে ক্ষতিকর ভাইরাস দূর করতে সাহায্য করে। এবং এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া থেকে শরীরকে বাঁচায়। শরীরকে তথা রক্তকে পরিষ্কার রাখে।

হলুদঃ হলুদকে বলা হয় লিভারের ওষুধ। কিন্তু শুধু লিভার নয়, রক্তকে পরিষ্কার রাখতেও এর ভূমিকা অতুলনীয়। হলুদ অ্যান্টিসেপটিক হিসাবে কাজ করে। এর কারকিউমিন নামক উপাদান লিভারকে সুস্থ রাখার একটি অন্যতম উপাদান। এবং রক্তকেও পরিষ্কার রাখে। তাই রান্নায় ব্যবহার করুন কাঁচা হলুদ। বা প্রতিদিন কাঁচা হলুদ চিবিয়ে খান।

করলাঃ বাড়ির বড়রা নিশ্চয়ই বলে বেশি করে তেঁতো খেলে রক্ত পরিষ্কার হয়। এটা কিন্তু সত্যি রক্তকে পরিষ্কার রাখার জন্য করলার থেকে উপকারী উপাদান আর কিছু হয় না। করলায় আছে ডিটক্সিফাইং উপাদান। যা রক্তকে ডিটক্সিফাই করে। রক্ত থেকে টক্সিন ও অন্যান্য ক্ষতিকারক উপাদান বার করে। এর জন্য সপ্তাহে তিনদিন করলা সেদ্ধ খান। শরীর সুস্থ থাকবে।

গাজরঃ রক্তকে পরিষ্কার রাখতে গাজরের কোন তুলনাই না। গাজরে রয়েছে এমন একটি উপাদান যা রক্তকে পরিষ্কার রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও গাজরে রয়েছে ভিটামিন এ, সি, বি, কে ও প্রচুর পটাশিয়াম। যা রক্তকে পরিশুদ্ধ করতে দারুণ সাহায্য করে। তাই নিজের রক্ত পরিশুদ্ধ রাখতে চাইলে বেশি করে গাজর খান। কাঁচা গাজর চিবিয়ে খেতে পারলে আরও ভালো।

ব্রকোলিঃ রক্ত পরিষ্কার রাখার কাজে ব্রকোলিও খুব উপকারি একটি সবজি। এটি রক্তকে ডিটক্সিফাই করে। রক্ত থেকে সমস্ত ক্ষতিকারক উপাদান টেনে বার করতে সাহায্য করে। তাই যদি বেশি করে ব্রকোলি খাওয়া যায় তাহলে রক্ত দুষিত হবার সম্ভবনাই থাকে না।

তাহলে যেনে নিলেন বাড়িতে বসেই কত সহজে রক্তকে পরিষ্কার রাখা যায়। তাই আজ থেকেই শুরু করে দিন রক্ত পরিষ্কার রাখার প্রস্তুতি। কারণ রক্ত দূষিত হয়ে গেলে কিন্তু পুরো শরীরটাই ভেঙ্গে পড়বে। তাই সাবধান থাকুন।








Leave a reply