রক্তে শর্করার মাত্রা ঠিক রাখতে ডায়াবেটিস রোগীদের এই অভ্যাসগুলি করা উচিত

|

আমরা সকলেই জানি যে আজকাল ডায়াবেটিসের মতো রোগ দিন দিন বাড়ছে। ডায়াবেটিসের কারণে শরীরে রক্তে শর্করার মাত্রা স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে বেশি থাকে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা খুব কঠিন এবং এর রোগীদের সংখ্যাও বাড়ছে। ডায়াবেটিস রোগীদের নিজস্ব রুটিনে বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত এবং ব্যায়াম বা যোগব্যায়াম অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। তাদের চিনিবিহীন খাবার খাওয়ার চেষ্টা করা উচিত এবং ভাজা খাবার খাওয়া এড়ানো উচিত। খাওয়ার পরে কিছুক্ষণ হাঁটা খুব কার্যকর হতে পারে। এখানে আমরা আপনাকে বলব কী কী কারণগুলি ডায়াবেটিস বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং কীভাবে আপনি তাদের প্রতিরোধ করতে পারেন।

সময়মতো খাবেন

ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে এটি গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি সময়মতো খান এবং এর মধ্যে কখনই খাবার এড়িয়ে যান না। অনেক সময় আপনার খাবার খাওয়ার মতো মনে হয় না, এক্ষেত্রে আপনার রস বা স্বাস্থ্যকর স্যুপ খাওয়া উচিত। সকালের প্রাতঃরাশে একটি ডায়েট নিন, যা ক্যালোরির পরিমাণ হ্রাস করে বা এটি হ্রাস করতে সহায়তা করে। রাতে হালকা খাবার খান যাতে কোনও তেল বা ঘি থাকে না। জাঙ্ক ফুড, মিষ্টি এবং ভাত খেতে নিষেধ করুন। আপনি স্বল্প পরিমাণে ফল গ্রহণ করতে পারেন এবং আপনার খাবারে একটি গ্লাস দুধ অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। এটি আপনার পক্ষে উপকারী হবে।

পর্যাপ্ত পরিমানে ঘুমানো

প্রায়ই আপনি আপনার স্বাস্থ্যের কথা ভাবেন না এবং এই কারণে সম্পূর্ণ ঘুম পড়েন না। ডায়াবেটিস রোগীদের ঘুমানো এবং তাদের রুটিন সংশোধন করা খুব গুরুত্বপূর্ণ। রাতে দীর্ঘ সময় জেগে থাকলে আপনার শরীরে চিনির মাত্রা বাড়তে পারে। ঘুমের অভাব আপনাকে সারা দিন ক্লান্ত বোধ করাতে পারে যা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক। রাতে খুব ঘুমানো এবং সকালে হালকা অনুশীলন করা আপনার পক্ষে উপকারী প্রমাণ করতে পারে।

পায়ের বিশেষ যত্ন নিন ডায়াবেটিস আপনার পায়ে বিভিন্ন ধরণের সংক্রমণ হতে পারে যেমন ফোসকা, ঘা, লালভাব, ফোলা ইত্যাদি।এগুলি এড়াতে আপনার পায়ের বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত, আরামদায়ক জুতো পরিধান করা উচিত, তেল দিয়ে পা ম্যাসেজ করা উচিত এবং অ্যান্টিবায়োটিক ক্রিম প্রয়োগ করা উচিত। ডায়াবেটিসের কারণে আপনার হাঁটাচলা করতেও সমস্যা হয়, সেক্ষেত্রে আপনি রাতে গরম কাপড় পরে ঘুমাতে পারেন, এটি আপনার পক্ষে উপকারী।

অনুশীলন এবং অন্যান্য কার্যক্রম সুস্থ থাকার জন্য আপনি কিছুক্ষণ স্ট্রেচিং এবং এ্যারোবিক ব্যায়াম বা যোগব্যায়াম করতে পারেন। এটি আপনার ফ্যাট হ্রাস করে এবং ক্যালোরিও হ্রাস করে। এগুলি ছাড়াও আপনি আপনার রুটিনে অনেক ক্রিয়াকলাপ অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন যেমন- আপনি যখন ফোনে কথা বলেন তখন একটু ঘুরবেন।

দোকানে কেনাকাটা করতে হাঁটুন। লিফটের পরিবর্তে সিঁড়ি ব্যবহার করুন। রাতের খাবার শেষে বাগানে একটু হাঁটুন। একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে ভুলবেন না প্রায়ই লোকেরা কেবল ডায়াবেটিসের পরে এড়ানো শুরু করে এবং ডাক্তারের কাছে যান না। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য সব সময় তাদের চেকআপ করা এবং চিকিত্সকের সাথে পরামর্শ করা জরুরি। চিনির মাত্রা বেশি বা কম কিনা তা দেখা খুব জরুরি। আপনার শরীরে চিনির পরিমাণ হ্রাস করার জন্য সঠিক ওষুধ এবং পরামর্শের সাহায্য নিন, এটি আপনার পক্ষে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং উপকারী।








Leave a reply