মশলাদার খাবার খেতে পছন্দ করেন? জেনে নিন এর উপকারিতা এবং ঝুঁকি

|

বেশিরভাগ ভারতীয় রান্নাই মশলাদার হয়, সে আমিষ হোক বা নিরামিষ। রান্নায় মশলার প্রয়োগ খাবারকে সুস্বাদু করে তোলে ঠিকই, তবে এর উপকারিতা ও অপকারিতা দুই’ই আছে। মশলাদার খাবার খেলে আমাদের দেহে কিছু প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়, যেমন – চোখ-নাক থেকে জল পড়া, জিভে জ্বালা এবং কান লাল হয়ে যাওয়া। তাহলে আসুন জেনে নেওয়া যাক মশলাদার খাবার খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে।

মশলাদার খাবার খাওয়ার উপকারিতা।ঃ

ইনফেকশনের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে
খাবারে ব্যবহৃত মশলা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ, এছাড়াও এতে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি সংক্রমণের হাত থেকে আমাদের বাঁচাতে সহায়তা করতে পারে।

প্রদাহ কমায়
মশালায় অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি গুণ রয়েছে। আর, অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি খাবারগুলি মাথা ব্যথা, অটোইমিউন ডিজিজ, আর্থ্রাইটিস এবং বমিভাবের মতো স্বাস্থ্য সমস্যার চিকিৎসায় দুর্দান্ত কার্যকরী।

বিপাকে উন্নতি
মশলায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট-র উপস্থিতি শরীরের বিপাককে বাড়িয়ে তুলতে পারে, যা ওজন পরিচালনায় সহায়তা করতে পারে।

দীর্ঘদিন বাঁচতে সহায়তা করতে পারে
হার্ভার্ড এবং চায়না ন্যাশানাল সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন-এর এক গবেষণা অনুযায়ী, নিয়মিত মশলার ব্যবহার মানুষকে দীর্ঘদিন বাঁচতে সহায়তা করতে পারে।

ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে
গবেষণা অনুযায়ী, মশলাদার খাবারগুলি ক্যান্সার কোষ অপসারণ করতে এবং তাদের বৃদ্ধিকে সীমাবদ্ধ করতে পারে। এটি ক্যান্সারের কোষগুলির বৃদ্ধি রোধ করতে পারে, যার ফলে ক্যান্সারের বৃদ্ধি হ্রাস পায়।

মশলাদার খাবার খাওয়ার ঝুঁকি
যেকোনও কিছুরই যেমন সুবিধা এবং অসুবিধা দুই’ই থাকে, তেমনই মশলারও উপকারিতা ও অপকারিতা আছে। মশলা সহ্য করার ক্ষমতা সব ব্যক্তির মধ্যে সমান হয় না। মশলাদার খাবার খাওয়ার ফলে হজম সংক্রান্ত সমস্যা বাড়তে পারে। এটি টেস্ট বাডস-এর ক্ষতি করতে পারে। তাই সর্বদা পরিমিত মশলাদার খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।








Leave a reply