ভ্যাপসা গরমে যত করণীয়

|

ভাদ্র মাস প্রায় শেষের দিকে। আর শরতের এই সময়ে প্রকৃতিতে এই গরম এই বৃষ্টি। রোদ উঠলেই গরমে যেন হাঁসফাঁস অবস্থা। আবার এক মিনিটের জন্য এসি ঘর থেকে বের হলেই ভ্যাপসা গরমে ঘেমে ভিজে যেতে হয়। সবকিছু মিলিয়ে এবারে শরতের এই সময়টা যেন একেবারে বিমাতাসুলভ আচরণ করছে। বৃষ্টি আর ভ্যাপসা গরমে জ্বর-সর্দিতে ভুগছে অনেকেই। তাই ভ্যাপসা এই গরমে কিছুটা স্বস্তি পেতে এবং সুস্থ থাকতে করতে পারেন কিছু করণীয় কাজ। চলুন জেনে নেই এমন কিছু কাজ সম্পর্কে।

খাবার-দাবার

এই ভ্যাপসা গরমে রোদ থেকে এসেই সঙ্গে সঙ্গে ঠাণ্ডা পানি একেবারেই খাবেন না। সেইসাথে খাবার-দাবারে যতটা সম্ভব মশলা এড়িয়ে যান। অতিরিক্ত চা, কফি ও মদ্য পান করবেন না। এই সমস্ত অভ্যাস আপনার ভেতরে অস্বস্তি আরও বাড়িয়ে দেয়। তবে দেশীয় ও পানি জাতীয় ফলমূল ও খাবার বেশি করে খেতে পারেন।

পোশাক ও প্রসাধন

ভ্যাপসা গরমে মোটা ও গাঢ় রংয়ের পোশাক, কৃত্রিম তন্তুর পোশাক এড়িয়ে চলুন। হালকা ঢিলেঢালা ও আরামদায়ক জামা পরুন। এতে করে শারীরিক ও মানসিকভাবে স্বস্তিবোধ করবেন। রোদে বের হওয়ার আগে বেশি প্রসাধনী ব্যবহার করবেন না। কিন্তু সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে ভুলবেন না।

পানি ও গ্লুকোজ

বাইরে বের হওয়ার সময়ে ব্যাগে পানির বোতল রাখুন। পারলে পানিতে লবন ও চিনি মিশিয়ে রাখুন। সেইসাথে যদি পারেন স্যালাইন বা গ্লুকোজ মিশিয়ে নিতে পারেন। এতে আপনার শরীরে একটা চাঙ্গা ভাব থাকবে। এছাড়া চাইলে সাথে সানগ্লাস, ছাতা বা টুপি রাখতে পারেন।

এসিতে করণীয়

বার বার এসি ঘরে ঢুকবেন আর রোদে বাইরে বের হবেন না। এতে হিটস্ট্রোক হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এসি ঘর থেকে বের হয়ে একটু ছায়ায় দাঁড়িয়ে ঠাণ্ডা হয়ে নিন। শরীরের তাপমাত্রাকে ভারসাম্যে আসতে দিন।

সতর্কতা

গরম লাগছে বলেই রাস্তা থেকে কাটা ফল, সরবত কিনে খাবেন না। এতে পানিবাহিত নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সেইসাথে খুব প্রয়োজন না হলে রোদে বের হবেন না।








Leave a reply