বৃষ্টির মধ্যে কি খেলে শরীর ভালো থাকবে

|

বর্ষাকাল মানেই যখন-তখন বৃষ্টি। ঘরে বসে অনেকেই ঝুম বৃষ্টি বেশ উপভোগ করেন। সঙ্গে গরম-গরম উপাদেয় কিছু খাবার থাকলে তো কথাই নেই। ভালো লাগায় যোগ হয় ভিন্ন স্বাদ। দেখা যাক, কী কী খাওয়া যায়:

খিচুড়ি: মেঘ-বৃষ্টির দিনগুলো খিচুড়ি ছাড়া কি চলে? সঙ্গে বেগুন ভাজা, নানা রকম ভর্তাও করে নিতে পারেন। বর্ষার এ সময়ে বৃষ্টির সঙ্গে খিচুড়িটা জমে ভালো। চালে-ডালে নরম খিচুড়ি বা সবজি দিয়ে নিরামিষ খিচুড়ি রান্না করে খেতে পারেন। বাড়িতে যদি ইলিশ থাকে তবে তো ইলিশ-খিচুড়ি। তবে বৃষ্টির দিনে এক প্লেট গরম খিচুড়ির সঙ্গে ডিম ভাজিও কিন্তু মন্দ নয়।

চা: ঝুম বৃষ্টির দিনে ভাপ ওঠা এক কাপ চা বা কফি সঙ্গে গল্পের বই কিংবা পুরোনো দিনের কিছু বাংলা গান—নিশ্চয়ই মন্দ লাগবে না। অনেকে চায়ের সঙ্গে শিঙাড়াও খেতে পছন্দ করেন। পেঁয়াজ-কাঁচা মরিচ আর সরষের তেল দিয়ে মাখানো মুড়িও বেশ জমে। গ্রিন টি বা আদা চা শরীরকে রাখবে চনমনে। চায়ে রয়েছে অনেক বেশি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। ফেসবুক, মোবাইল অফ করে প্রিয়জনের সঙ্গে বসে বৃষ্টি দেখতে দেখতে এক কাপ চা বা কফির কাপে চুমুক দেওয়ার সময়টা অসাধারণ।

নুডলস: রিমঝিম বৃষ্টিতে আবহাওয়া কিছুটা ঠান্ডা হয়ে আসে। এমন আবহাওয়ায় স্বাদে কিছুটা ভিন্নতা চান কেউ কেউ। স্বাদের ভিন্নতা আনতে বৃষ্টির দিনে ঝটপট রান্না করে ফেলতে পারেন নুডলস। তবে বৃষ্টির দিনে ঝোল করা নুডলস বেশি ভালো লাগতে পারে। নুডলসের সঙ্গে ডিম, পেঁয়াজ, টমেটো আর ধনেপাতা মেশালে স্বাদ যেমন বাড়ে, তেমনি গন্ধটাও হয় জিবে জল আনার মতো। আর নুডলস ঝটপট করা যায়। এই আবহাওয়ায় তা পেটের জন্যও ভালো।

পপকর্ন: বৃষ্টির দিনে পপকর্ন হতে পারে সময় কাটানোর জন্য হালকা নাশতা। চায়ের সঙ্গে নাশতা হিসেবে পপকর্ন খেতে পারেন। সিনেমা দেখতে বসে বা পার্কে সময় কাটাতে গিয়ে পপকর্ন খেতে পছন্দ করেন অনেকেই। তরুণ প্রজন্মের কাছে এই খাবার বেশ জনপ্রিয়। ভুট্টা থেকে তৈরি হয় পপকর্ন। আর এই শস্যে আঁশ বা ফাইবারের পরিমাণ বেশি। পাশাপাশি আছে নানা ধরনের ভিটামিন ও খনিজ উপাদান।
পাকোড়া: ঝুম বৃষ্টির দিনে মুচমুচে পাকোড়ার চেয়ে সুস্বাদু আর কি লাগবে? পাকোড়ার সঙ্গে একটু কেচাপ আর চাটনি মন্দ হয় না। পরে যদি এক কাপ চাও পাওয়া যায়, সেটা তো বোনাস!

স্যুপ: বৃষ্টির শীতল দিনে কিছুটা উষ্ণতা জোগাতে পারে পুষ্টিগুণে ভরপুর স্যুপ। নিজেকে উষ্ণ রাখতে তাই খেতে পারেন এক বাটি স্যুপ। চিকেন, মাশরুম বা সবজি দিয়ে তৈরি করতে পারেন স্যুপ। তথ্যসূত্র: এনডিটিভি।








Leave a reply