বিভিন্ন রোগ সারাতে পিঁয়াজের উপকারিতা গুলো জানুন

|

আমরা সকলেই পিঁয়াজ কাঁচা অথবা মসলার সাথে খেয়ে থাকি। তবে আমরা পিঁয়াজের গুনাগুন গুলো জানি না। তবে চলুন পিঁয়াজের গুনাগুন গুলো জেনে নেওয়া যাক |পিয়াজ আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী। বিভিন্ন রোগেও চমৎকার কাজ করে।

কোষ্ঠ – কাঠিন্যে :- কারো কোষ্ঠ কাঠিন্য হলে এক থেকে দেড় চামচ পিঁয়াজের রস সমপরিমাণ গরম জলের সাথে মিশিয়ে রাত্রে শোবার সময় খেলে পায়খানা পরিষ্কার হয়।

মাথার চুল ওঠা :- মাথার চুল ওঠা ঠেকাতে পিঁয়াজ খুবই উপকারী। মাথার চুল উঠতে থাকলে এক টুকরো পিয়াজের রস বানিয়ে সেই রস মাথায় মালিশ করলে মাথা থেকে চুল ওঠা বন্ধ হয় ও নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে।

বেশি গরমে :- অনেক সময় দেখা যায় প্রচুর পরিমানে গরম পড়লে বা লু পড়লে মানুষ অসুস্থ হয়ে পরে। এই অবস্থায় রোজ কাঁচা পিঁয়াজ খেলে গরম ও লু এর হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

নাক থেকে রক্ত পড়া :- নাক থেকে রক্ত পড়ার দোষ থাকলে ৪/৫ ফোটা পিঁয়াজের রস নসীর মতো নাকে টানলে নাক থেকে রক্ত পড়া বন্ধ হয়।

প্রসাবের বেগ ধরণের অক্ষমতায় :- প্রসাবের বেগ ধরণের অক্ষমতা দেখা দিলে প্রতিদিন রাতে ১ চামচ পিঁয়াজের রস ৭ দিন ধরে নিয়মিত খেলে উপকার পাওয়া যায়।

সর্দিতে :- সর্দির প্রথম অবস্থায় যখন নাক দিয়ে জল পরে সেই অবস্থায় এক চামচ পিঁয়াজের রস ২ চামচ হালকা গরম জলের সাথে খেতে হবে খাবার পর এতে নিশ্চিত উপকার পাবেন।

এছাড়া পিয়াজের কিছু গুনাগুন :-

১. দু চামচ পিঁয়াজের রস ও দু চামচ মধু এক সাথে মিশিয়ে রোজ সকালে নিয়মিত খেলে পুরুষত্ব বৃদ্ধি পায়।

২. পিঁয়াজ খেলে গলা পরিষ্কার হয় , মুখমন্ডল পরিষ্কার হয় দাঁত দুধের মতো সাদা হয় , স্মরণ শক্তি বাড়ে এবং সেই সাথে দুর্বল স্নায়ু সবল হয়।

৩. যেসব শিশুদের ঘুম কম হয় এবং রাতে ঘুমায় না তাদের ঘুমের ওষুধ হচ্ছে এই পিঁয়াজ। প্রথমে এক লিটার জল ভালো করে ফুটিয়ে নিয়ে আগুন থেকে নামিয়ে নিন। দুটি মাঝারি সাইজের থেঁতো করে ,সেই থেঁতো পিঁয়াজ ওই জলে ৫-১০ মিনিট দিয়ে রাখুন। এবার জল ঠান্ডা হলে ছেকে নিন। খুব ছোট শিশু হলে এক চামচ জল নিয়ে ৫ ফোটা মধু মিশিয়ে বাচ্চাকে খাইয়ে দিন। তারাতারি ঘুম আসবে।

৪. যেসব বাচ্চারা ভাত খেতে শিখেছে এবং কৃমি রোগে ভুগছে তাদের এক চামচ করে পিয়াজের রস নিয়মিত করে খাওয়ালে কৃমি নষ্ট হবে এবং যদি বদহজম ভোগে তাও সারবে।

৫. যদি বার বার মল ত্যাগের জন্য দুর্বলতায় শরীর ঠান্ডা হয়ে যায় তাহলে দু চামচ পিঁয়াজের রসের সাথে এক চামচ আদার রস ও এক চিমটি গোলমরিচ মিশিয়ে খাওয়ালে শরীরের স্বাভাবিক তাপ ফিরে আসে আর পেটের মোচড় কমে।

৬. এক চামচ সাদা পিয়াজের রস তার সাথে মধু আদার রস ও ঘি এক চামচ করে মিশিয়ে ২১ দিন ধরে রোজ সকালে খেলে পুরুষত্ব বৃদ্ধি পায়।

৭. গরমের জন্য মাথা ব্যাথা করলে পিঁয়াজের টুকরো শুকিয়ে দিলে আরাম হয়।

৮. পিঁয়াজের রস দাদ ও চুলকানিতে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

৯. পিঁয়াজের রস মাথায় লাগালে উকুন মরে যায়।








Leave a reply