নিম পাতার গুনাগুন সংক্রমণ ও ব্যথা দূরীকরণে উপায়

|

নিম পাতা যেকোনো রোগে ওষুধের মত কাজ করে। এটি শরীরে চিনি কমানো , রক্ত সাফ করা এবং পেটের সমস্যা অপসারণের পাশাপাশি সংক্রমণ এবং ত্বকের রোগ প্রতিরোধ করে।
নিমের ডিকোশন
ক্রমবর্ধমান চিনি কমাতে নিমের ডিকোশন পান করতে পারেন। এ জন্য এক মুঠো তাজা নিম পাতা জলে ধুয়ে ফেলুন। এগুলিকে ২ গ্লাস জলে সিদ্ধ করুন। আধা গ্লাস পানি দিয়ে পান করুন। এই ভাবে দিনে দু’বার পান করুন।

মনে রাখবেন

এছাড়াও প্রতি ২-৩ মাসে আপনার চিনির স্তর পরীক্ষা করে দেখুন। মনে রাখবেন যে গর্ভবতী মহিলা এবং মহিলারা যারা বুকের দুধ খাওয়ান তাদের উচিত এটি গ্রহণ করা।

গোসলের ক্ষেত্রেও নিম ব্যবহার করুন

ত্বকের সাথে যদি কোনও সমস্যা বা সংক্রমণ হয়, তবে গোসলের পানিতে নিমের পাতার সিদ্ধ পানি মিশিয়ে স্নানের অভ্যাস করুন।
আপনার শরীরকে সুস্থ রাখতে নীচে প্রদত্ত ফলগুলিও ব্যবহার করতে পারেন। ফলগুলি বৈশিষ্ট্য অনুসারে ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।

আম

প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং ভিটামিন-সি থাকায় আমকে ফলের রাজা বলা হয়। হাড়কে শক্তিশালী করা ছাড়াও এটি শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখে। নিয়মিত এটি খেলে স্ট্রেস হয় না।

কিউই

ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে কিউই শরীরে উপস্থিত জীবাণু এবং ব্যাকটেরিয়াগুলি ধ্বংস করতে কাজ করে। এটি রক্ত পুনরায় পূরণ করতেও কার্যকর। এতে ডায়েটারি ফাইবার রয়েছে যা ক্ষুধা বাড়াতে সহায়ক।

পেঁপে

পেঁপের বৈশিষ্ট্য দুর্বল কোষকে শক্তি দেয়। এছাড়াও, যাঁরা ওজন কমাতে ব্যস্ত, আপনি যদি প্রতিদিন ১০০ গ্রাম পেঁপে খান তবে উপকার হবে। লিভারকে সুস্থ রাখতে আপনি এটি খেতে পারেন।








Leave a reply