দাঁতে ব্যথায় আদা, হিং এবং পেঁয়াজের রস কীভাবে স্বস্তি দেয় এবং কীভাবে ব্যবহার করবেন তা জেনে নিন

|

দাঁতে ব্যথার পিছনে অনেক কারণ রয়েছে। কখনও দাঁতে কৃমির কারণে ব্যথা হয়, কখনও কখনও মাড়ির সমস্যার কারণে হয়। অনেক সময় দাঁত গোড়া থেকে দুর্বল হয়ে পড়লে তীব্র ব্যথা অনুভূত হয়। এ জাতীয় পরিস্থিতিতে ব্রাশ করা খুব কঠিন হয়ে যায় এবং দুর্গন্ধের সমস্যাও শুরু হয়। দাঁতের ব্যথা এবং মুখে ফোলাভাবের কারণে মাথাব্যথা শুরু হয়। এ কারণে ঘুমোতে ও খেতে অনেক অসুবিধা হয়। দাঁতের ব্যথা উপশম করতে আপনি কিছু ঘরোয়া প্রতিকারের সাহায্য নিতে পারেন। আদা, হিং এবং পেঁয়াজের রস খুব উপকারী। আসুন কেন তা উপকারী এবং কীভাবে এটি ব্যবহার করা যেতে পারে তা জেনে নেওয়া যাক-

আদা: দাঁতে ব্যথার জন্য আদা খুব উপকারী কারণ এটিতে প্রদাহ বিরোধী গুণ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। এই বৈশিষ্ট্যগুলি দাঁতের সমস্যা কমাতে সহায়তা করে এবং ব্যথা ও ফোলাভাব থেকেও মুক্তি দেয়। ব্যথা কমাতে দাঁতে আদা টিপুন। আপনি এর রস থেকে মুক্তি পাবেন।

হিং: হিং ব্যবহার করলে দাঁত ব্যথা কমে এবং মাড়ি থেকে রক্ত বের হওয়াও রোধ করে। হিংহে ২৫% আঠা এবং ১০–১৭ শতাংশ উদ্বায়ী তেল থাকে যা দাঁতের ব্যথা হ্রাস করে। লেবুর রসের সাথে হিং মিশিয়ে দাঁতে ভালো করে লাগান। এটি আপনাকে স্বস্তি দেবে।

পেঁয়াজের রস: পেঁয়াজে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা দাঁতে ব্যথা এবং ফোলাভাব কমায়। এর বাইরে মাড়ির সমস্যাও হ্রাস করে। পেঁয়াজের রস কিছুক্ষণ মুখে রাখুন। যদি এটি আপনার পছন্দ না হয় তবে আপনি এটি সালাদ হিসাবে খেতে পারেন।

রসুন: দাঁতে ব্যথার জন্য রসুন ব্যবহার উপকারী। রসুনের এন্টিসেপটিক এবং অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ব্যাকটিরিয়া এবং জীবাণু ধ্বংস করে এবং ব্যথা হ্রাস করে। এবং এটি আপনাকে দ্রুত বিশ্রাম দেবে।

নুন এবং মরিচ: লবণ এবং গোলমরিচের অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা দাঁতে ব্যথা এবং প্রদাহ হ্রাস করে। নুন এবং গোলমরিচের একটি পেস্ট তৈরি করুন এবং এটি আক্রান্ত স্থানে লাগান এবং কিছুক্ষণ রেখে দিন।








Leave a reply