ডায়াবেটিস কমাবে দই,কিন্তু কিভাবে?জেনে নিন!

|

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে দই শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে পারে বলে ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলের প্রধান নিতা ফোরোহি জানান, যারা খাদ্য তালিকায় দই এড়িয়ে যান, তাদের তুলনায় যারা অধিক পরিমাণ দই রাখেন, তাদের টাইপ-২ ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা ২৮ শতাংশ কম।

এ গবেষণায় ১১ বছরের মধ্যে টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়েছেন- এমন ৭৫৩ রোগীর

১. সপ্তাহের খাদ্য তালিকার বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করা হয়। গবেষণায় উঠে এসেছে দুগ্ধজাত অন্যান্য খাবার ভিটামিন ‘ডি’, ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়ামের ভালো উৎস হলেও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা রাখে না। কিন্তু ব্যাকটেরিয়ার সাহায্যে গাঁজন প্রক্রিয়ায় তৈরি দই ডায়াবেটিসের বিরুদ্ধে কার্যকর ভূমিকা রাখে। ভিটামিন ‘কে’রও ভালো উৎস দই। নিতা ফোরোহি বলেন, প্রচলিত ধারণা ছিল দই ও গাঁজন প্রক্রিয়ায় তৈরি দুগ্ধজাত খাবার চিনিযুক্ত হওয়ায় তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

সবাই এখন যা পড়ছে :- লিভার নষ্ট হয় বা পঁচে যায় কেন জানেন? রইলো ৯টি কারণ! মানুষের দেহের প্রধান অঙ্গপ্রত্যঙ্গ গুলোর মধ্যে অন্যতম হল লিভার। দেহের স্বাভাবিক কার্যক্রম পরিচালনায় লিভারের সুস্থতা অনেক জরুরী। কিন্তু কিছু বাজে অভ্যাসের কারণে প্রতিনিয়ত মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে লিভার। এরই ফলাফল হিসেবে লিভার ড্যামেজের মতো মারাত্মক সমস্যায় ভুগতে দেখা যায় অনেককেই।

১. দেরি করে ঘুমোতে যাওয়া এবং দেরি করে ঘুম থেকে ওঠা দুটোই লিভার নষ্টের কারণ। এতে শারীরিক সাইকেলের সম্পূর্ণ উল্টোটা ঘটতে থাকেএবং তার মারাত্মক বাজে প্রভাব পরে লিভারের উপরে।

২. অনেকেই সকালে ঘুম থেকে উঠেও কুড়েমি করে প্রস্রাবের বেগ হলেও বাথরুমে না গিয়ে তা চেপে শুয়েই থাকেন। এতে লিভারের উপরে চাপ পড়ে এবং লিভার স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা হারায়।

৩. অতিরিক্ত বেশি খাওয়া দাওয়া করা লিভারের পক্ষে ক্ষতিকর । অনেকেই আবাব বহুক্ষণ সময় না খেয়ে একবারে অনেক বেশি বেশি করে খেয়ে ফেলেন।

৪. সকালের খাবার না খাওয়ায় লিভার পক্ষে ক্ষতিকর। যেহেতু অনেকটা সময় পেট খালি থাকার কারণে অন্যান্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গের পাশাপাশি খাদ্যের অভাবে কর্মক্ষমতা হারাতে থাকে লিভারও।

৫. অনেক বেশি ঔষধ খেলে লিভার নষ্ট হয়৷ বিশেষ করে ব্যথানাশক ঔষধের জেরে লিভারের কর্মক্ষমতার হ্রাস পায়ে।

৬. কেমিক্যাল সমৃদ্ধ যেকোনো কিছুই লিভারের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। কিন্তু আলসেমি ও মুখের স্বাদের জন্য আমরা অনেকেই প্রিজারভেটিভ খাবার, আর্টিফিশিয়াল ফুড কালার, আর্টিফিশিয়াল চিনি ইত্যাদি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলি যা লিভার নষ্টের অন্যতম কারণ।

৭. খারাপ তেল ও অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার লিভারের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। একই তেলে বারবার ভাজা খাবার বা পোড়া তেলের খাবার বেশি পরিমাণে খাওয়া হলে লিভার তার স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা হারাতে থাকে।








Leave a reply