চোখে অঞ্জনী! কিভাবে মিলবে সমাধান

|

শীতকালে ধুলাবালির সংক্রমণে নানা রোগবালাই দেখা দেয়। এর মধ্যে চোখেও ময়লা জমে সংক্রমণ দেখা দিতে পারে। চোখের পাপড়ি বের হওয়ার স্থানে এ সময় দেখা দেয় ছোট লাল দানা বা পুটলির আকার, যা পরিচিত অঞ্জনি নামে।

যে মোমাবিয়ান গ্রন্থি চোখে জল উৎপাদন করে সেই গ্রন্থিপথে যদি ময়লা জমে- তখন লোমকূপের মুখ বন্ধ হয়ে এই অঞ্জনি দেখা দেয়। যদিও এটি খুব মারাত্মক কোনো সমস্যা নয়, তবে এর ফলে প্রচুর ব্যথা হয়- চোখ লালচেও হয়ে যায়। চোখ ভালো করে যারা পরিষ্কার করেন না তারাই এই অঞ্জনির সমস্যায় বেশি ভুগেন।

লক্ষণ ও প্রতিক্রিয়া : অঞ্জনি হলে চোখ লাল হয়ে যায়। সেই সাথে ফুলে ওঠে চোখের পাতা। চোখের পলক ফেলতে ও রোদে তাকাতেও সমস্যা দেখা দেয়। এই অঞ্জনি থেকে আঠালো পদার্থ বের হওয়াসহ নানা রকম প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

যা করবেন :

আলুর ব্যবহার : আলু ব্যবহার করে অঞ্জনি সমস্যায় কিছুটা শান্তি মিলতে পারে। আলুর খোসা ছাড়িয়ে গোল করে কেটে আক্রান্ত চোখে লাগিয়ে রাখুন। এর ফলে চোখের ফোলা কমে যাবে এবং আরামদায়ক মনে হবে। ভালো ফলাফল পেতে অঞ্জনি না সারা পর্যন্ত এভাবে আলু ব্যবহার করুন।

অ্যালোভেরার ব্যবহার : তরল ও ঠান্ডা জাতীয় উদ্ভিদ অ্যালোভেরা নানা কাজেই লাগানো যায়। এই অ্যালোভেরার পাতা কেটে ভেতরের জেল বের করুন। আক্রান্ত স্থানে তা লাগালে ব্যাকটেরিয়া দূর হয়ে যাবে। সেই সাথে দ্রুত সারবে অঞ্জনি।

বরিক পাউডারের ব্যবহার : আধা চা চামচ পরিমাণ বরিক পাউডার দিয়ে আক্রান্ত চোখে সেঁক দিলে দুই থেকে তিন দিনে ব্যথা কমার পাশাপাশি ফোলাভাবন কমে যাবে।

সবুজ চায়ের ব্যবহার : হালকা কুসুম গরম জলে ডুবিয়ে রাখুন সবুজ টি-ব্যাগ। পরে তা চোখের আক্রান্ত স্থানে ধরলে অঞ্জনির ভেতরের পদার্থ নরম ও তরল হয়ে যাবে। ফলে কমবে চোখের ব্যথা।

শেষ কথা হলো, চোখে অঞ্জনি নিয়ে বাইরে বের হওয়ার সময় চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন। আর খেয়াল রাখবেন যেন অঞ্জনিতে চাপ না পড়ে। এ অবস্থায় বাইরে বের হতে হলে সানগ্লাস ব্যবহার করতে ভুলবেন না।








Leave a reply