‘কিসমিস’ শরীরের জন্য কতটা উপকারী, জেনে নিন

|

খাদ্য গ্রহণে ভুল পদ্ধতি অবলম্বনের ফলে পেটে অনেক ধরণের সমস্যা সৃষ্টি হয়। যেমন অম্লতা, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং পেট ফাঁপা ইত্যাদি। এমন পরিস্থিতিতে ওষুধ খাওয়ার পরিবর্তে কিছু প্রাকৃতিক জিনিস সেবন করে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। খুব কম লোকই কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসার জন্য ডাক্তারের কাছে যায়। অনেকেই আবার ডাক্তারের কাছে না গিয়েও এর চিকিৎসা করে। এমন কিছু প্রাকৃতিক জিনিস রয়েছে যা কোষ্ঠকাঠিন্য এবং পেট ফাঁপা হওয়ার সমস্যাটি কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করে। এই প্রাকৃতিক খাবারগুলি অন্ত্রের জন্য জন্য গুরুত্ত্বপুর্ণ।

ত্রিফলা
এটির তিনটি ফল যেমন আমলা, হরিটাকি এবং বিবিটকী একটি গুরুত্তপুর্ন ঔষধ হিসাবে কাজ করে। এটি হজম এবং অন্ত্রের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। আপনি এক চামচ ত্রিফলা হালকা গরম জলের সাথে নিয়ে ঘুমাতে যাওয়ার আগে বা সকালে খালি পেটে মধুর সাথে ত্রিফলা গুঁড়ো মিশিয়ে খাওয়া ভালো।

কিশমিশ
কিসমিসগুলি ফাইবারে পূর্ণ এবং একটি প্রাকৃতিক রেচক হিসাবে কাজ করে। এই প্রতিকারটি কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়াই গর্ভবতীদের জন্য আশ্চর্যজনকভাবে কাজ করে। কিসমিস খাওয়ার আরও অন্যান্য সুবিধা রয়েছে। এক মুঠো কিসমিস রাতে জলে ভিজিয়ে রাখুন। এগুলি সকালে খালি পেটে গ্রহণ করুন।

ডুমুর
শুকনো বা পাকা ডুমুর উভয়ই ফাইবারে পূর্ণ। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে কিছু ডুমুর এক গ্লাস দুধে সিদ্ধ করুন। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এই মিশ্রণটি পান করুন। ডুমুর ফল হিসাবে খাওয়া যেতে পারে।
প্রচুর পানি পান করুন
আয়ুর্বেদ ডাঃ চন্দ্রমোহন পান্ডে বলেছেন যে, কোষ্ঠকাঠিন্য প্রশমনের জন্য তৈলাক্ত বা মশলাদার খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে হবে। আপনি যদি নিয়মিত কোষ্ঠকাঠিন্যে সমস্যায় ভুগে থাকেন তবে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।








Leave a reply