কলা খেলে কি সত্যিই ওজন কমে

|

কলা খেলে ওজন বাড়ে না কমে এ নিয়ে অনেকে দ্বন্দ্বে ভোগেন। কলা শুধু শরীরের ভেতরকেই ভালো রাখে না, বাইরের সৌন্দর্যকেও বাড়িয়ে তোলে। কলা ছোট-বড় সবার জন্যই উপাদেয়।

কলা খেতে কমবেশি সকলেই ভালোবাসে। বিশেষত ব্রেকফাস্টে কর্নফ্লেক্স আর ওটসের সঙ্গে কলা দিলে স্বাদটাই অন্যরকম হয়ে যায়। অনেকের ধারণা কলা খেলে ওজন বাড়ে। আবার কেউ কেউ মনে করেন, এটি খেলে ওজন কমে। কলা নিয়ে কোন তথ্যটি সঠিক তা নিয়ে অনেকেই দ্বন্দ্বে ভোগেন। কলা স্বাস্থ্যকর কর্বসের একটি হিসাবে বিবেচিত হয়। এগুলি পটাসিয়াম, মেজাজ-নিয়ন্ত্রক ফোলেট, ট্রিপটোফেন এবং শক্তিশালী কার্বসের একটি দুর্দান্ত উত্স। তাই ওজন হ্রাসে পক্ষেও খুব সহায়ক। তবে কলা স্থূলত্ব কমাতে সহায়ক হবে যখন আপনি এটি সঠিকভাবে খাবেন।

সঠিকভাবে এটি না খেলে এর উপকার পাওয়া যায় না। একথা ঠিক কলা খাওয়ার অনেক রকম উপকার হয়ত আছে, কিন্তু সেটা খাওয়ার কিছু পদ্ধতিও আছে। মানে নিয়মের বাইরে গিয়ে খেলে এর ফলে শরীরে খারাপ প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করেন অনেকে। সেই কারণেই আজ কলা খাওয়ার সেরা উপায়টি বলা হবে, যাতে যারা ওজন হ্রাস করার চেষ্টা করছেন তারা সফল হতে পারেন।
হলুদ রঙের কলা ওজন কমানোর জন্য ভালো

আপনি ওজন কমানোর চেষ্টা করুন বা না করুন, হলুদ কলা সবার জন্য সর্বোত্তম বিকল্প। যে কোনও ধরণের কলার চেয়ে হলুদ কলা বেশি উপকারী।

যদি কোনও ব্যক্তি হলুদ কলা খান তবে সে তার সমস্ত সুবিধা পেতে সক্ষম। দেহের শক্তি, হজমও ভালো হয়। আমাদের পেট যদি ঠিক না থাকে, তবে ওজন হ্রাস হবে কীভাবে? তা ছাড়া ফাইবার সমৃদ্ধ কলা খেলে অনেকক্ষণ পেট ভরা অনুভূত হয়। তখন অন্য খাবার খাওয়ার আগ্রহ কমে যায়। এতে ওজন বাড়ার আশঙ্কাও কমে। পুষ্টিবিদরা জানাচ্ছেন, যারা কলা খেতে পছন্দ করেন তারা বিভিন্ন খাবারের পরিবর্তে খাদ্য তালিকায় কলা রাখতে পারেন। এটি ওজন কমাতে সাহায্য করবে। হলুদ রঙের কলা এনার্জি এনে দেয় এবং পাকস্থলীকে সক্রিয় রাখতেও সাহায্য করে।

বাদামী রঙের কলা

দীর্ঘক্ষণ কলা রাখলে রাখলে তা নরম হতে শুরু করে। কলার উপরের স্তরটি বাদামী হতে শুরু করে। এজন্য একে বাদামী কলা বলা হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, হলুদ কলাতে ৬.৩৫ গ্রাম স্টার্চ পাওয়া গেলে বাদামী কলাতে এর মাত্রা ০.৪৫ গ্রাম। হলুদ কলাতে ৩.১ গ্রাম ফাইবার থাকে যা আমাদের হজমের জন্য খুব উপকারী। যদি আপনি বাদামি কলা সম্পর্কে জানতে চান, তবে এতে ১.৯ গ্রাম ফাইবার রয়েছে। তবে, একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, বাদামী কলা ডায়াবিটিস রোগীদের জন্য ক্ষতিকারক নয়। কলায় যদিও শর্করার পরিমাণ বেশি থাকে তারপরও ডায়াবিটিস রোগীর কলা খেলে কোনো সমস্যা হয় না। কারণ এতে থাকা ফাইবার শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। ছবি সৌজন্য: পিক্স আবে।

ওজন কমানোর জন্য সবুজ কলা সবচেয়ে উপকারী

বিশেষজ্ঞদের মতে, সবুজ কলাতে বাদামী কলাগুলির তুলনায় চিনি এবং প্রতিরোধের স্টার্চ কম থাকে। বলা হয় যে, হজমের জন্য সবচেয়ে উপকারী হিসাবে বিবেচিত হয় প্রতিরোধের স্টার্চ। কারণ এটি পেটে উপস্থিত কোনও ধরণের এনজাইম দ্বারা ভেঙে ফেলা যায় না। এইভাবে খাওয়ার পরে, আপনি ক্ষুধা বোধ করবেন না। এজন্য বেশিরভাগ ডায়েটিশিয়ান এবং চিকিৎসক সবুজ কলা খাওয়ার পরামর্শ দেন। যাঁরা জিমে যাওয়ার আগে ব্রেকফাস্ট করেন তাঁরা যদি তালিকায় কলা রাখেন তাহলে উপকার পাবেন। কারণ কলা শক্তির উৎস। সহজে আপনি ক্লান্ত হয়ে পড়বেন না।








Leave a reply