করোনা থেকে সুস্থ হওয়ার পর আপনাকে যেসব খাবার খেতে হবে

|

প্রাণঘাতী করোনার থাবায় দিশেহারা সারা বিশ্ববাসী। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বিশ্বের প্রায় ৯০ লাখ মানুষ। অনেকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আবার সুস্থ হয়ে ঘরেও ফিরছেন। তাই সকলের জানা উচিত করোনা থেকে সুস্থ হয়ে নিজেদের খাদ্য তালিকায় কি কি পরিবর্তন আনা জরুরী। জেনে নিন করোনায় সুস্থ হবার পর কী কী খেতে হবে-

১. সকালে উঠে খিদে পাক বা না পাক খেয়ে ফেলতে হবে। খেতে হবে ৩ ঘণ্টা অন্তর, দিনের কোনও খাবার বাদ দেওয়া যাবে না। এক দিন ব্রেকফাস্ট না করলে কিছু হবে না, এমন ভাবনা থেকে বেরিয়ে আসুন। এতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যেমন বাড়ে, ওজনও আয়ত্তে থাকে।

২. যত খিদেই পাক, পেট খানিকটা খালি রেখে খাবেন। পানির বোতল সাথে রাখুন। মাঝেমধ্যে চুমুক দিন।

৩. রাতের খাবার যত হালকা হয় ততটাই ভাল। শুতে যাওয়ার অন্তত ঘণ্টা দুয়েক আগে খান। খাওয়ার পর একটু পায়চারি করুন।

৪. ওজন যাতে না বাড়ে সে দিকে খুব খেয়াল রাখুন। তবে ক্র্যাশ ডায়েট করে নয়।

৫. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে এমন পুষ্টিকর খাবার খান নিয়মিত।

৬. শান্ত হয়ে বসে, ভাল করে চিবিয়ে, মন দিয়ে খান। একে বলে মাইন্ডফুল ইটিং। এভাবে খেলে হজম ভাল হয়। খাবারের পুষ্টি ভাল ভাবে শোষিত হয় শরীরে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

নতুন খাবার-
১. সকালে খালিপেটে খান হলুদ দুধ। গরুর দুধে বা আমন্ড দুধে এক চামচ কাঁচা হলুদ বাটা, আধ চামচ দারচিনির গুঁড়া, সিকি চামচ গোলমরিচের গুঁড়া মিশিয়ে বানান। সুগার না থাকলে মধু মেশাতে পারেন। এর পর আধঘণ্টা কিছু খাবেন না।

২. সকালে চা-এর বদলে আয়ুর্বেদিক ক্বাথও খেতে পারেন। তুলসি, পিপলি, আদা ও মধু দিয়ে বা তুলসি, আদার সঙ্গে গোলমরিচ, দারচিনি, কিশমিশ, মধু ও লেবুর রস দিয়ে বানাতে পারেন। আধ চামচ গুড়ুচি এক কাপ জলে ফুটিয়ে মধু মিশিয়েও বানানো যায়। নিয়মিত খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যেমন বাড়বে, বাড়বে হজমশক্তি। গলাতেও আরাম হবে।

৩. সকালে এমন খাবার খান যার ভেতরে কোনও অস্বাস্থ্যকর উপাদান নেই। গম ও ছোলা শুকনো খোলায় ভেজে তাতে মেশান ওটস ও বার্লি। তার পর মিক্সিতে গুঁড়া করে দুধ বা পানি দিয়ে ফুটিয়ে ফল মিশিয়ে খান। আমন্ড দুধে কাঁচা হলুদ, ওটস ও মধু মিশিয়ে পরিজ বানাতে পারেন।

৪. দুপুরে ভাতের সঙ্গে কাঁচা হলুদ ও গোলমরিচ বাটা খান। ডাল-সব্জির সঙ্গে লেবু খান। বা খাওয়ার পর কোনও টক ফল খান।

৫. লেবু দিয়ে ধনেপাতা বা পুদিনার চাটনি বা ১৫ মিলি আমলকির রস খেতে পারেন।

৬. রান্নায় সব ধরনের মশলা ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে ব্যবহার করুন। যেমন, ধনে, জিরা, হলুদ, গোলমরিচ, আদা, রসুন, মেথি, কালোজিরা।

৭. ইমিউনিটি বাড়ে এমন একটি মশলা বানিয়ে রাখুন। ৩ চামচ করে জিরে, ধনিয়া, ৬ চামচ মেথি ও এক চামচ গোলমরিচ শুকনো প্যানে ভেজে, গুঁড়া করে নিন। তাতে মেশান এক চামচ আদার গুঁড়া, ৬ চামচ হলুদ গুঁড়া ও সিকি চামচ দারচিনির গুঁড়া। যে কোনও রান্নায় মেশানোর আগে এক চামচ ঘি অল্প গরম করে তাতে এক চামচ মশলা দিয়ে নেড়ে নিন। ভাত, সেদ্ধ সব্জি, ডাল, স্যুপ সব কিছুতেই মেশাতে পারেন।








Leave a reply