আমড়ার কয়েকটি স্বাস্থ্য গুনাগুন

|

মৌসুমি ফল হিসেবে আমড়া আমাদের অনেকেরই খুব প্রিয়। টক-মিষ্টি স্বাদের ফলটি শুধু খেতেই মুখরোচক নয়, এর রয়েছে অসাধারণ স্বাস্থ্যগুণ। এমনকি আপেলের চেয়ে আমড়ায় প্রোটিন, ক্যালসিয়াম ও আয়রনের পরিমাণ বেশি।
১০০ গ্রাম আমড়ায় ভিটামিন সি থাকে ৯২ মিলিগ্রাম। আমাদের দৈনন্দিন যে চাহিদা ভিটামিন সি-র, একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের ৪৫ মিলিগ্রাম, এর চেয়ে তিন গুণ বেশি। আমরা যদি প্রতিদিন দুই-তিনটি আমড়া খেতে পারি, তাহলে ভিটামিন সি-র চাহিদা পূরণ হবে। ভিটামিন সি আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, ঠাণ্ডা সর্দি কাশি জ্বর, এগুলোর বিরুদ্ধে প্রতিরোধব্যবস্থা গড়ে তোলে। এ ছাড়া আমড়ায় রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে।

ভিটামিন সি-এর উৎস
আমড়া ভিটামিন সি-এর ভাল উৎস। ১০০ গ্রাম আমড়ায় ভিটামিন সি থাকে ৯২ মিলিগ্রাম। আমাদের দৈনন্দিন যে চাহিদা ভিটামিন সি-র, একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের ৪৫ মিলিগ্রাম, এর চেয়ে তিন গুণ বেশি। আমরা যদি প্রতিদিন তিনটা বা দুইটা আমড়া খেতে পারি, তাহলে ভিটামিন সি-র চাহিদা পূরণ হবে। ভিটামিন সি আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, ঠাণ্ডা সর্দি কাশি জ্বর, এগুলোর বিরুদ্ধে প্রতিরোধব্যবস্থা গড়ে তোলে। এছাড়া আমড়ায় রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে।

ক্যালসিয়ামের চাহিদা পূরণ করে
ক্যালসিয়ামের ভালো উৎস আমড়া। এতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্যালসিয়াম রয়েছে, যা শিশুর দৈহিক গঠনে সাহায্য করে। কাজেই শিশুদেরও নিয়মিত ফলটি খাওয়ানো উচিৎ।

ত্বক ভালো রাখে
আমড়ায় প্রচুর ভিটামিন সি রয়েছে যা ত্বক উজ্জ্বল রাখতে সাহায্য করে। ত্বকের ব্রণ কমাতে, ত্বক উজ্জ্বল রাখতেও আমড়া দারুণ উপকার করে থাকে। তাই ত্বক সুস্থ ও উজ্জ্বল রাখতে খেতে পারেন আমড়া।

রক্তস্বল্পতা রোধ করে
আমড়ায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকার কারণে এটি রক্তস্বল্পতা রোধে কার্যকর ভুমিকা পালন করে থাকে। সাথে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা সঠিক পর্যায়ে রাখে।

বদহজম ও কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে
আমড়াতে পেকটিন জাতীয় ফাইবার রয়েছে, যা বদহজম ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। তাই প্রতিদিন এই ফলটি খাওয়ার চেষ্টা করুন।

সর্দি কাশি, ইনফ্লুঞ্জার বিরুদ্ধে কাজ করে
সর্দি-কাশি-জ্বরের উপশমেও আমড়া অত্যন্ত উপকারী। বিভিন্ন ভাইরাসের আক্রমণ থেকে রক্ষা করা ছাড়াও আমড়া সর্দি কাশি, ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগের জীবাণুর বিরুদ্ধে কাজ করে। যার ফলে নানা সংক্রমণ থেকে সহজেই বেঁচে থাকা যায়।

হৃদরোগ প্রতিহত করে
আমড়ায় প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। তাই আমড়া খাওয়া সার্বিক হৃদস্বাস্থ্যের জন্যই উপকারী।
এছাড়া অসুস্থ ব্যক্তিদের মুখের স্বাদ ফিরিয়ে দেয় আমড়া। এমনকি এটি রক্তস্বল্পতাও দূর করে। আমড়ায় থাকা ভিটামিন সি রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। খাদ্যে থাকা ভিটামিন এ এবং ই আমড়ার সঙ্গে যুক্ত হয়ে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে দেহকে নানা রোগ বালাই থেকে রক্ষা করে।








Leave a reply