আপনার ডায়েটে কমলা যুক্ত করুন, স্বাস্থ্যকর এবং ত্বকও উন্নতি করবে

|

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন যে, ফল ও সবুজ শাকসবজী খেয়ে আপনার স্বাস্থ্য সবসময় ভাল থাকে। এ জাতীয় পরিস্থিতিতে যদি কিছু খাবার বাদে কিছু ফলমূল এবং শাকসব্জি আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত থাকে তবে, এটি প্রতিটি উপায়ে আপনার পক্ষে খুব উপকারী প্রমাণ করতে পারে। আজ আমরা আপনাকে কমলা খাওয়ার উপকারিতা বলতে যাচ্ছি, যার ঋতু বর্তমান। আসলে কমলালেবুতে ভিটামিন সি, ফাইবার জাতীয় জিনিস রয়েছে যাতে এই ফলটি ত্বকের পাশাপাশি স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সহায়তা করে।
তাহলে আসুন জেনে নিই কমলা খাওয়ার উপকারিতা কী –
১. রক্তচাপ:

কমলা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। এতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ রয়েছে যা রক্তচাপের স্তর নিয়ন্ত্রণ করতেও সহায়তা করে। শীতকালে, এর ক্ষয় হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে, তাই আপনার অভ্যাসের মধ্যে কমলা গুণুন।
২. ঠাণ্ডায় সহায়ক:

কমলাতে ভিটামিন সি রয়েছে, যা দেহে সাদা কোষের উত্পাদন বাড়িয়ে তোলে। এর সাহায্যে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সিস্টেমকে শক্তিশালী করে। এর সাহায্যে এটি ভাইরাল এবং ঠান্ডা ব্যাকটেরিয়াগুলির সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে।
৩. কিডনিতে পাথরের জন্য:

একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, প্রতিদিন কমলা খেলে কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস পায়। এটির সাহায্যে কিডনিতে ফ্যাট জমে যাওয়ার সম্ভাবনাও হ্রাস পায়।
৪. স্বাস্থ্যকর ত্বকের জন্য:

কমলা খাওয়ার ফলে এতে থাকা ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য কোষগুলি মেরামত করে ত্বকের উন্নতি করে। এটি ছাড়াও এটি পিম্পলসের সমস্যাও দূরে রাখে।
৫. কমলার খোসা:

কমলার খোসার গুঁড়া তৈরি করুন, তিন চামচ গুঁড়োতে ২ টেবিল চামচ দুধ, ১ চা চামচ নারকেল তেল, ২ থেকে ৪ চামচ গোলাপজল মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করুন। এটি সপ্তাহে ৪ থেকে ৫ বার ব্যবহার করুন। আসলে কমলা ত্বকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেয় যা ত্বকের সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।
৬.সান ট্যান অপসারণ করতে:

কমলার রস সান ট্যানের সমস্যা কমাতে এবং ত্বকের স্বরকে একই করতে সহায়তা করে। আপনি যদি চান, ত্বকে কমলার রস বা কমলা রঙের সজ্জা লাগান, এটি ১০ মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং পরে এটি সাধারণ জলে ধুয়ে ফেলুন। আপনার যদি তৈলাক্ত ত্বক থাকে তবে কমলার রস বা সজ্জার সাথে কিছুটা মাল্টানি মিতির মিশ্রণটি লাগান।








Leave a reply