অন্ধকারে স্মার্টফোন আপনার চোখকে কতটা ক্ষতি করে দেখুন

|

টেলিভিশন থেকে এক মিটার দূরে থাকুন আপনার চোখ ঠিক থাকবে। টিভির ব্লু রে-গুলি আমাদের চোখের জন্য খুব বিপজ্জনক। এখন আরও মারাত্মক হল মোবাইল ফোনের আলো। মোবাইল ফোন এখন আমাদের জীবনের একটি অঙ্গ। টিভি কেবল ড্রইংরুমে সিমাবদ্ধ থাকলেও মোবাইল ফোন আমরা নিকটে এবং বিছারায় ব্যবহার করি। আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা অন্ধকারে স্মার্টফোনটি দেখতে থাকি এবং আসক্তির কারণে চোখের স্ট্রোকের ঝুঁকি বেড়েছে।

অন্ধকারে স্মার্টফোন দেখার নেশা বাচ্চাদের খুব বেশি কষ্ট দেয়। চীনের চিকিৎসরা বলেছেন যে, এটি শিশুদের মধ্যে চোখের স্ট্রোক এবং চোখে নষ্টের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে।
চীনের শানসি প্রদেশের চিকিৎসাদের মতে ওয়াং নামের এক ব্যক্তি ঘুমের সময় স্মার্টফোন অনেক সময় দেখার কারণে চোখের স্ট্রোক (আই স্ট্রোক) ভোগ করেছিলেন এবং এক স্ট্রোকের কারণে তার দৃষ্টি শক্তি হারিয়ে ফেলেছিলেন। অন্ধকারে অনেকক্ষণ স্মার্টফোনে ভিডিও গেম খেলার অভ্যাস ছিল ওয়াং এর।

আই স্ট্রোক কি?

ওয়াং সেন্ট্রাল রেটিনাল আর্টেরিয়োক্লেশন নামে একটি রোগ চিহ্নিত করেছিলেন। যা আই স্ট্রোক নামেও পরিচিত। আই স্ট্রোক মস্তিষ্কের একটি স্ট্রোকের মতো, রেটিনার রক্ত প্রবাহ বন্ধ হয়ে গেলে আই স্ট্রোক হয়। বিশ্বব্যাপী দুই কোটিরও বেশি মানুষ এই রোগে ভুগছেন। যদিও আমেরিকান চিকিৎসকদের মতামত এর থেকে আলাদা। তিনি বিশ্বাস করেন যে, ওয়াংকে অ্যাকুলার মাইগ্রেনের আক্রমণ হয়ে ছিলো যার কারণে সাময়িকভাবে তার দৃষ্টি হারিয়ে ফেলেছিল। এটি রেটিনা বা চোখের পিছনে টর্সনের কারণে হয়।

চোখের স্ট্রোকের লক্ষণ ও প্রভাব

১.আই স্ট্রোক দৃষ্টি খুব দুর্বল করে তোলে বা প্রদর্শিত হওয়া বন্ধ করে দেয়।
২.মোবাইল ফোন, ট্যাব এবং ল্যাপটপে নজর রেখে শিশুদের চোখের বিরূপ প্রভাব পড়ছে।
৩.বাচ্চাদের দূর দৃষ্টিশক্তি দুর্বল হয়ে উঠছে। অবিচ্ছিন্নভাবে দেখার কারণে চোখটি স্ট্রোক হয়।
৪.চোখে অশান্তি আসে এতে করে শিশুদের চোখ কুঁকড়ে যাচ্ছে এবং চশমার ব্যবহারের সংখ্যা বাড়ছে।








Leave a reply