বক্সঅফিসে সুপার ৩০

|

গত শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে বিকাশ বহেল পরিচালিত হৃতিক রোশনের ‘সুপার থার্টি’। হৃতিকের কেরিয়ারের বড় বাজি এই ছবি। অনেকেই মনে করেছিলেন, অভিনেতার কামব্যাক ফিল্ম। আদৌ কামব্যাক করলেন কিনা, সে বিচারের ভার দর্শকের। আপাতত বক্স অফিসের রেজাল্ট ‘সুপার’।

চলুন দেখে আসি বক্স অফিসে কেমন রেজাল্ট করল ‘সুপার থার্টি’।

প্রথমদিন ১১ কোটি টাকার কিছু বেশি ব্যবসা করেছিল। শনিবার সেই ব্যবসার পরিমাণ গিয়ে দাঁড়ায় ১৮ কোটি টাকার কিছু বেশি। সব মিলিয়ে প্রথম দু’দিনে ৩০ কোটি টাকার ব্যবসা করেছে ছবিটি। সিনে বিশেষজ্ঞ তরণ আদর্শের টুইটে সে ইঙ্গিত মিলেছে।

এ ছবির শুরু থেকেই জড়িয়ে ছিল বিতর্ক। কখনও প্রযোজনা সংস্থা ভেঙে যাচ্ছে, কখনও বা পরিচালক যৌন হেনস্থার ঘটনায় অভিযুক্ত হচ্ছেন। বারবার বদলেছে ‘সুপার থার্টি’র মুক্তির দিন। গত দু’বছর হৃতিকের কোনও ছবি মুক্তি পায়নি। নতুন নতুন হিরোদের ভিড়ে হৃতিক খানিক কোণঠাসাই বলা যায়। ‘সুপার থার্টি’ দিয়ে নিজের হারানো জায়গাটা উদ্ধার করতে চেয়েছেন অভিনেতা। সম্ভবত সে কারণেই প্রত্যেকটা বিতর্ককে পাশ কাটিয়ে ছবিটা বাঁচানোর চেষ্টা করেছেন। ভেঙে যাওয়া ফ্যান্টম ফিল্মসের এটাই শেষ ছবি। বিকাশ বহেলের বিরুদ্ধে #মিটুর অভিযোগ উঠতে, হৃতিক পরিচালকের নাম ছবি থেকে বাদ দেওয়ার দাবি তোলেন। তদন্তে বিকাশের বিরুদ্ধে কিছু প্রমাণিত না হওয়ায় অবশ্য পরিচালক হিসেবে তাঁর নামই দেওয়া হয়েছে।

বিহারের গণিতজ্ঞ আনন্দ কুমারের জীবন আধারে তৈরি ‘সুপার থার্টি’। সমাজের নিচুতলার ছেলেমেয়েদের ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের জন্য প্রস্তুত করেন আনন্দ। গ্ল্যামারাস অবতার ছেড়ে আনন্দের চেহারার ছাঁচে নিজেকে ঢেলেছেন হৃতিক। গলার স্বর বদলেছেন। তাঁর এই প্রচেষ্টা কতটা সফল তার প্রমাণ পাওয়া যাবে বক্স অফিসের রেজাল্টে।








Leave a reply