জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে শাকিব খান

|

শুরু হয়েছে শাকিব খানের নতুন ছবির শুটিং। অনন্য মামুন পরিচালিত ‘নবাব এলএলবি’ নামের সিনেমার শুটিং করছেন তিনি। তার সঙ্গে আছেন ছবির দুই নায়িকা মাহিয়া মাহি ও অর্চিতা স্পর্শিয়া।

১৬ সেপ্টেম্বর থেকে ‘নবাব এলএলবি’র শুটিং চলছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে। এর আগে ঢাকার বিভিন্ন লোকেশনে ছবিটির শুটিং শুরু হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পরিচালক অনন্য মামুন বলেন, পুরোদমে আমরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। পুরো টিমের সবাই খুব সাপোর্ট দিচ্ছেন। এজন্য কাজ হচ্ছে বেশ গুছিয়ে। কাল থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে শুট করছি। এখানকার পরিবেশও চমৎকার। কাজ করতে এসে খুব ভালো অভিজ্ঞতা হচ্ছে। বিশেষভাবে বলতে হয় আমার ছবির শিল্পীরা খুবই পরিশ্রম করছেন ছবিটির জন্য। শাকিব খান নিজে শুটিং স্পটে চলে আসছেন নির্ধারিত সময়ের আগেই। তিনি কাজ করছেন একটানা। সেটের প্রয়োজন অনুসারে তিনি কাজ করছেন। সিনেমাটা দ্রুত শেষ করার তাগিদ দিচ্ছেন। এটা বাড়তি প্রেরণা দিচ্ছে।’

শাকিব ও মাহি ‘নবাব এলএলবি’ ছবির মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ৭ বছর পর আবারো জুটি বাঁধলেন। এর আগে ২০১৩ সালে জাজ মাল্টিমিডিয়ার প্রযোজনায় পিএ কাজল পরিচালিত ‘ভালোবাসা আজকাল’ সিনেমায় প্রথমবার একসঙ্গে দেখা গিয়েছিলো শাকিব-মাহিকে। দীর্ঘদিন পর আবারও এই জুটিকে পেয়ে উচ্ছ্বসিত দুই তারকার ভক্তরা। তারা আশা করছেন ছবিটি সুপারহিট হবে বলে।

এদিকে অনন্য মামুন চলতি বছরের ১৫ মার্চ ‘নবাব এলএলবি’ ছবির ঘোষণা দেন। ২৮ মার্চ থেকে শুটিং শুরুর কথা ছিলো। আরও কথা ছিলো ছবিটি রোজার ঈদে মুক্তি পাবে। কিন্তু মাঝে দিয়ে করোনা এসে সব এলোমেলো করে দিলো। স্থগিত হয়ে যায় ছবিটির শুটিং। অবশেষে সেপ্টেম্বরের শুরুর দিকে শুটিং শুরু হলো ছবিটির। আর ১০ সেপ্টেম্বর থেকে এ ছবির জন্য ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছেন শাকিব খান।

শাকিব খান (জন্ম ২৮ মার্চ ১৯৭৯)[ক][১] হচ্ছেন একজন বাংলাদেশী চলচ্চিত্র অভিনেতা, প্রযোজক, গায়ক, চলচ্চিত্র সংগঠক ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব। সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত অনন্ত ভালবাসা (১৯৯৯) চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তার অভিনয় জীবন শুরু করেন।[৬] তিনি গণমাধ্যমে “সুপারস্টার”, “কিং খান” ও “ঢালিউড কিং” হিসাবে সম্বোধিত হন। তিনি বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত অভিনেতা।[৭][৮]

শাকিব তার কর্মজীবনে একাধিক পুরস্কার অর্জন করেছেন, যার মধ্যে রয়েছে চারটি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার,[৯] আটটি মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার,[১০] তিনটি বাচসাস পুরস্কার ও চারটি সিজেএফবি পারফরম্যান্স পুরস্কার। তিনি ২০১০ সালের ভালোবাসলেই ঘর বাঁধা যায় না,[১১][১২] ২০১২ সালের খোদার পরে মা,[১৩][১৪] ২০১৫ সালের আরো ভালোবাসবো তোমায়[১৫][১৬] এবং ২০১৭ সালের সত্তা[১৭][১৮] চলচ্চিত্রের জন্য চারবার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।[৯][১৯]

তার অভিনীত অন্যান্য উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল নাট্যধর্মী সুভা (২০০৬), প্রণয়ধর্মী আমার প্রাণের স্বামী (২০০৭), প্রিয়া আমার প্রিয়া (২০০৮), ও বলবো কথা বাসর ঘরে (২০০৯), প্রণয়ধর্মী-হাস্যরসাত্মক আদরের জামাই (২০১১), মারপিট-প্রণয়ধর্মী ডন নাম্বার ওয়ান (২০১২), প্রণয়ধর্মী পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী (২০১৩), মারপিট-থ্রিলারধর্মীশিকারি (২০১৬), নবাব (২০১৭), নাট্যধর্মী রাজনীতি (২০১৭), সত্তা (২০১৭) ও প্রণয়ধর্মী-হাস্যরসাত্মক চালবাজ (২০১৮), ভাইজান এলো রে(২০১৮), নাকাব(২০১৮)। ২০১১ সালে মনের জ্বালা চলচ্চিত্রে তিনি প্রথমবারে মতো তিনি নেপথ্য সঙ্গীতশিল্পী হিসাবে গানে কন্ঠ দেন। ২০১৪ সালে তিনি হিরো: দ্যা সুপার স্টার চলচ্চিত্র দিয়ে প্রযোজক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন এবং পরবর্তীকালে পাসওয়ার্ড (২০১৯), বীর (২০২০) ও প্রিয়তমা চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেন।








Leave a reply