কিম কি-দুককে কেন ভুলতে পারবেন না জয়া?

|

সমসাময়িক চলচ্চিত্র বিশ্বের আলোচিত নির্মাতা, দক্ষিণ কোরিয়ার পরিচালক কিম কি-দুক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

এই মহান পরিচালকের মৃত্যুর শোক লেগেছে বাংলাদেশি তারকাদের মধ্যেও। সম্প্রতি জয়া আহসান তার মৃত্যুর ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সময়নিউজের পাঠকের জন্য জয়ার স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো।

‘ সারা জীবন বিতর্ক তৈরি করে গেলেন কিম কি–দুক। তুলে গেলেন অপ্রীতিকর সব প্রশ্নও। কী জীবনে, কী সিনেমায়! কিন্তু তাঁর ছবিগুলোকে এড়াতে পারেননি কেউ। কারণ সেগুলো আমাদের চোখ থেকে রঙিন চশমা খুলে নিয়েছিল।
কী যে অবলীলায় চরমতম নিষ্ঠুর অভিজ্ঞতা থেকে গভীরতম প্রশান্তি ও স্থিরতায় যাতায়াত করেছেন একেকটি ছবিতে, এই একজনই মানুষ।
শিল্প–দুনিয়া কি কখনো ভুলে যেতে পারবে ‘স্প্রিং, সামার, ফল, উইন্টার…অ্যান্ড স্প্রিং’ ছবির কথা? ভুলতে পারবে ‘পিয়েতা’ বা ‘দ্য বো’ ছবিটি?

কিম কি–দুককে কী করে ভোলা সম্ভব! ‘

১৯৬০ সালের ২০ ডিসেম্বর দক্ষিণ কোরিয়ার বোংঘোয়ায় কিম কি-দুকের জন্ম। কঠিন এক শৈশব পার করে নব্বইয়ের দশকের শুরুতে তিনি পাড়ি জমান প্যারিসে। সেখানে ফাইন আর্টসে লেখাপড়া করার সময়ই তার শিল্প ভাষা একটি রূপ পেতে থাকে।

পরে দক্ষিণ কোরিয়ায় ফিরে চিত্রনাট্য লেখার কাজে হাত দিয়ে ১৯৯৫ সালে কোরিয়ান ফিল্ম কাউন্সিলের পুরস্কার পান কিম কি-দুক। পরের বছর মুক্তি পায় তার প্রথম সিনেমা ‘ক্রোকোডাইল’।








Leave a reply